তীব্র শীতে কাঁপছে উত্তরের জেলা নাটোর II প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে জেলা প্রায় ৩৫ হাজার শীতবস্ত্র বরাদ্ধ

আপডেট: জানুয়ারি ১৫, ২০২৪, ৯:৪৭ অপরাহ্ণ


নাটোর প্রতিনিধি:


তীব্র শীতে কাঁপছে উত্তরের জেলা নাটোর। ঘন কুয়াশা আর হিমেল হাওয়ায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে এ অঞ্চলের মানুষ। বেলা গড়িয়ে গেলেও সূর্যের দেখা মেলেনি। ঘন কুয়াশার তীব্রতার কারণে দিনের বেলায়ও যানবাহন গুলো চলছে হেডলাইট জ্বালিয়ে। অপরদিকে কয়েক দিনের কনকনে শীতে বিপাকে পড়েছে ছিন্নমূল মানুষগুলো। সারাদিন হাড় কাঁপানো শীতে নাজেহাল হয়ে পড়েছে তারা। বৃষ্টির মতো কুয়াশা পরায় কাজেও যেতে পারছেন না তারা। আবার রাতে শীত আরও জেঁকে বসায় কাহিল হয়ে পড়েছে জীবন। পর্যাপ্ত গরম কাপড়ের অভাবে নিদ্রাহীন রাত কাটছেন অনেকেই।

হিমেল বাতাস আর কনকনে শীতের কারনে ব্যাহত হচ্ছে দৈনন্দীন কাজ। শিশু ও বয়োবৃদ্ধ নিয়ে বিপাকে পড়েছেন পরিবারের সদস্যরা। সংসারের খরচ জোগান দিতে শীত উপেক্ষা করে শ্রমজীবীরা কাজে যেতে পারলেও স্কুল-কলেজে যেতে চাচ্ছে না ছেলেমেয়েরা।
এদিকে জেলা ও উপজেলা প্রশসনের পক্ষ থেকে অসহায় ও দুঃস্থ মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র (কম্বল) বিতরণ শুরু করেছেন ।

নাটোর রেলওয়ে স্টেশনে গত রাতে খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, শীতের হাত থেকে রেহাই পেতে কম্বলকে চাদর বানিয়ে দুজনেই জড়োসড়ো হয়ে আছে খোদেজা বেগম। এসময় কথা হয় তার সাথে । তিনি বলেন গরিব মানুষ খাবারের টাকাই জোগাতে পারি না। আবার শীতে গরম কাপড় কিনব কী দিয়ে? কেউ গরম কাপড় দিয়ে এখনো কোনো সহযোগিতা করেননি।

অপরজন ৭০ বছর বয়সী জাহেদা বেগম বলেন, রাতের শীতে বেশি কষ্ট হয়। শুধু একটি চাদর দিয়ে শরীর মুড়িয়ে শুয়ে থাকেন। বাতাস লাগলে ঘুম ভেঙ্গে যায়। দিনের বেলা কোনো রকমে পার হলেও রাতে অসহায় হয়ে পড়েন শীতের কাছে।

রোববার রাতে লালপুর উপজেলার মঞ্জিলপুকুর আশ্রয়ন প্রকল্পের ৫০ অসহায় ও দুঃস্থ শীতার্ত মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেছেন, রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার (অতিরিক্ত সচিব) ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর । পরে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আজিমনগর রেলওয়ে স্টেশনসহ বিভিন্ন এলাকায় ছিন্নমূল মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।

এসময় বিভাগীয় কমিশনারের সাথে ছিলেন নাটোর জেলা প্রশাসক আবু নাছের ভুঁঞা, লালপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইসাহাক আলী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বড়াইগ্রাম সার্কেল) শরীফ আল রাজিব, উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আখতার, সহকারী কমিশনার (ভূমি) আরাফাত আমান আজিজ, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মাহফুজুর রহমান প্রমুখ।

এছারাও নাটোরের জেলা প্রশাসক আবু নাছের ভুঁঞা এবং সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন সাত্তার সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে গত কয়েক দিন ধরে শীতবস্ত্র (কম্বল) বিতরণ করছেন।
ঈশ্বরদী আবহাওয়া অফিস জানায়, সোমবার সকালে নাটোর সহ আশপাশের এলাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১০ দশমিক ২ ডিগ্রী সেলসিয়াস।

এব্যাপারে নাটোরের জেলা প্রশাসক আবু নাছের ভুঁঞা জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে জেলায় এবার প্রায় ৩৫ হাজার শীতবস্ত্র (কম্বল) বরাদ্ধ দিয়েছেন। এগুলো ৭টি উপজেলা ৮টি পৌরসভা এবং ৫২টি ইউনিয়নের মাধ্য বিতরণ করা হচ্ছে। এছারা বেসরকারী বিভিন্ন এনজিওর মাধ্যমে শীতবস্ত্র দেয়া হচ্ছে। এর বাইরেও ৪০জন অসহায় ও দুঃস্থ মানুষ প্রতি পরিবারকে ১৪ কেজি করে বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী দিয়ে সহায়তা করা হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ