তুচ্ছ ঘটনায় মারপিটে গৃহবধূ আহত

আপডেট: আগস্ট ৩১, ২০১৭, ১:২৩ পূর্বাহ্ণ

রাণীনগর প্রতিনিধি


নওগাঁর পয়না (বলিহার) গ্রামে পাটকাঠি শুকানোকে কেন্দ্র করে রোজিনা (৩০) নামের এক গৃহবধূকে বেদম মারপিট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। মারপিটে গুরুতর আহত গৃহবধূ রোজিনাকে প্রতিবেশির মাধ্যমে তার পরিবার উদ্ধার করে রাণীনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। বর্তমানে রোজিনা তার বাবার বাড়ি রাণীনগর উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামে রয়েছেন। এ ঘটনায় রোজিনা নওগাঁ সদর মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ প্রদান করেন।
পারিবারিক ও অভিযোগ সূত্রে জানা, প্রায় ১৮ বছর আগে জেলা সদরের পয়না গ্রামের মৃত-ছলিম দেওয়ানের ছেলে দিনমজুর নজরুল ইসলামের সঙ্গে বিয়ে হয় রাণীনগর উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামের আবদুুল লতিফের মেয়ে রোজিনার। নজরুল মানসিক ভাবে একটু দুর্বল হওয়ায় তার অন্যান্য ভাইয়েরা তার পৈত্রিক সম্পত্তি জবর দখল করার জন্য দীর্ঘদিন থেকে চেষ্টা করে আসছে। কিন্তু রোজিনার জন্য তা সম্ভব না হওয়ায় কারণে-অকারণে নজরুলের পরিবারের সদস্যরা রোজিনাকে শারীরিক ও মানসিক ভাবে হয়রানি করে আসছিলো। বিগত দিনেও রোজিনাকে মারপিট করার কারণে একাধিকবার গ্রাম্য শালিস-বৈঠক হলেও মারপিট করার ঘটনা অব্যাহত থাকে। অতি সম্প্রতি বাড়ি উঠানে পাটকাঠি শুকানোকে কেন্দ্র করে নজরুলের বড় ভাবী সাহিদা বেগম ও নজরুলের ছোট ভাই আখতার হোসেন রোজিনাকে বেদম মারপিট করে। মারপিটের সময় রোজিনার চিৎকারে প্রতিবেশিরা ছুটে এসে রোজিনাকে উদ্ধার করে প্রথমে নওগাঁ সদর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে তার পরিবার রোজিনাকে রাণীনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। দীর্ঘদিন চিকিৎসা শেষে রোজিনা বর্তমানে তার সন্তানদের নিয়ে বাবার বাড়িতে অবস্থান করছেন। এ ঘটনায় রোজিনানওগাঁ সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দেন। অভিযোগ প্রদানের পর থেকে রোজিনাকে তার শ্বশুর বাড়ির লোকজন বিভিন্ন রকমের হুমকি-ধামকি প্রদান করে আসছে। যার কারণে গৃহবধূ রোজিনা সন্তানদের নিয়ে ফিরতে পারছেন না তার স্বামীর বাড়িতে। এতে করে রোজিনা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে নজরুলের ছোট ভাই আখতার হোসেন জানান, বাড়ির উঠানে পাটকাঠি না শুকানোর জন্য রোজিনাকে নিষেধ করলে সে গালিগালাজ শুরু করে। এতে করে তার সঙ্গে আমাদের একটু হাতাহাতি হয়েছে। তবে তাকে কোন মারপিট করা হয়নি।
পয়না গ্রামের স্থানীয় মেম্বার নজিরুন বিবি মুঠোফোনে জানান, নজরুলের পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা খুবই খারাপ। নজরুল দুর্বল হওয়ার কারণে তার পরিবার দীর্ঘদিন যাবত নিরীহ গৃহবধূ রোজিনাকে কারণে-অকারণে মারপিট করে আসছিলো। আমরা গ্রামে বসে একাধিকবার শালিস-বৈঠক করেও তা রোধ করতে পারি নি। তাই এবার আমরা রোজিনাকে পুলিশ প্রশাসনের আশ্রয় নেওয়ার জন্য বলেছি। স্থানীয় ভাবে আমরা রোজিনাকে সার্বিক সহায়তা করবো।
নওগাঁ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তোরিকুল ইসলাম জানান, লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা তদন্ত সাপেক্ষে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।