ত্রাণের জন্য অপেক্ষারত ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলি হামলায় ১৯ জন নিহত

আপডেট: মার্চ ২৪, ২০২৪, ১:০৭ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


অবরুদ্ধ গাজায় আবারো ত্রাণের অপেক্ষারত ফিলিস্তিনিদের ওপর  ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী হামলা চালিয়েছে। এতে কমপক্ষে ১৯ জন নিহত হয়েছেন এবং আহত হয়েছেন আরো ২৩ জন।

শনিবার (২৩ মার্চ) এ খবর জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা।
গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যমটি জানায়, গাজা শহরের দক্ষিণ-পূর্বে সাহায্যের অপেক্ষায় ভিড় জমায় ফিলিস্তিনের বেসামরিক নাগরিকরা। এ সময় সেই ভিড়ে অতর্কিত গুলি বর্ষণ করে ইসরায়েলি বাহিনী।

গাজার মিডিয়া অফিস শনিবার এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘হাজার হাজার নাগরিক আল-কুয়েত গোলচত্বরের কাছে আটা ও ত্রাণের ব্যাগগুলোর জন্য অপেক্ষা করছিলেন। এ সময় ইসরায়েলি দখলদারিত্ব গণহত্যাটি চালায়। তারা ১৯ জন নাগরিককে হত্যা করেছে এবং ২৩ জনকে আহত করেছে।
বিবৃতিতে আরো বলা হয়, অভুক্ত লোকদের দিকে তাক করে ইসরায়েলি ট্যাংকগুলো থেকে মেশিনগানের গুলি চালানো হয়। ত্রাণের আশায় ফিলিস্তিনিরা এমন এক জায়গায় জড় হয়েছিল যা ইসরায়েলের জন্য হুমকি বা ঝুঁকির সৃষ্টি করতো না।

একজন প্রত্যক্ষদর্শী আলা আল-খুদারি সংবাদ সংস্থা আলজাজিরাকে বলেছেন, ইসরায়েলি বাহিনী ভিড়ের ওপর এমন সময় গুলি চালায়, যখন অনেক শিশু ত্রাণের রুটিতে কামড় বসিয়েছিল। তাৎক্ষণিক অনেকে মারা যায় এবং অন্যরা আহত হন।

গাজার বেসামরিক প্রতিরক্ষা বিভাগের মুখপাত্র মাহমুদ বাসাল বলেছেন, ‘বেসামরিক নাগরিকদের ওপর ভারী গুলি চালানো হয়েছে এবং আহতদের নিকটবর্তী আহলি আরব হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ’
এদিকে ত্রাণের আশায় ভিড় জমানো ফিলিস্তিনের ওপর গুলি চালানোর কথা অস্বীকার করেছে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী। মানুষের ওপর গুলি চালানোর প্রতিবেদনগুলোকে ‘ভুল’ বলে দাবি করেছে ইসরায়েল।
তথ্যসূত্র: বাংলানিউজ