ত্রাণের জন্য ভোটার আইডি কার্ডের প্রয়োজন হবে না দুস্থরাই যাতে আর বাদ না পড়ে

আপডেট: এপ্রিল ২০, ২০২০, ১২:০৭ পূর্বাহ্ণ

ভোটার আইডি কার্ড না থাকার অজুহাতে কোনো অসহায়, ভাসমান গরিব ও দুস্থ ব্যক্তিকে করোনাভাইরাস সংক্রমণের এই পরিস্থিতিতে ত্রাণ বিতরণ থেকে বাদ দেয়া যাবে না। সম্প্রতি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে সকল জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) কাছে পাঠানো এক চিঠিতে এই নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন দৈনিক সোনার দেশ পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে।
করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে সৃষ্ট দুর্যোগে জেলায় সিটি করপোরেশন, উপজেলা, পৌরসভায় বসবাসকারী নিম্নআয়ের মানুষ, যেমন- বস্তিবাসী, বেকার শ্রমিক, চা শ্রমিক, রেস্টুরেন্ট শ্রমিক, মোটরযান শ্রমিক, নির্মাণ ও কৃষি শ্রমিক, চা দোকানদার, দিনমজুর, ভবঘুরে, প্রতিবন্ধী ব্যক্তি, বয়স্ক ব্যক্তি, স্বামী পরিত্যক্তা বা বিধবা নারী, রিকশা বা ভ্যানচালক, ভিক্ষুক, বেদে ও হিজড়া সম্প্রদায়, পথ শিশুদের মধ্যে প্রয়োজন অনুযায়ী ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা প্রয়োজন উল্লেখ করে ওই চিঠিতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ভোটার আইডি কার্ড না থাকার অজুহাতে কোনো অসহায়, ভাসমান গরিব ও দুস্থ ব্যক্তিকে ত্রাণ বিতরণ থেকে বাদ দেয়া যাবে না বলেও নির্দেশনা আছে।
তবে ইতোমধ্যেই অভিযোগ করা হচ্ছে যে, নিজ এলাকার ভোটার ও ভোটার আইডি কার্ড ছাড়া ত্রাণ দিচ্ছেন না জনপ্রতিনিধিরা। এ ছাড়াও স্বজনপ্রীতি ও দলীয় দৃষ্টিভঙ্গিতে ত্রাণ বিতরণের অভিযোগও করা হচ্ছে। তবে বড় ধরনের বঞ্চনার শিকার হচ্ছেন যাদের ভোটার আইডি কার্ড নেই কিংবা ভোটার আইডি কার্ড থাকলেও ব্যক্তির বর্তমান বসবাসের স্থানের ঠিকানার নয়Ñ তারা ত্রাণ সামগ্রী থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এই পরিস্থিতি খুবই অমানবিক।
করোনাভাইরাসের থাবা সাধারণ মানুষের জীবনকে যে ভাবে বিপর্যস্থ করে তুলেছে তাতে তাদের কাজ নেই, বাড়িতে খাবার নেই- পরিবার নিয়ে এক দুঃসহ জীবন-যাপন করছে। এসব মানুষ অবশ্যই ত্রাণের অগ্রাধিকার রাখেন কিন্তু সেটা তারা পাচ্ছেন না। সরকারের স্পষ্ট কোনো নির্দেশনা না থাকার ফলে কিংবা অজ্ঞতার কারণে জনপ্রতিনিধিরা ওই শ্রেণির মানুষগুলোকে ত্রাণ সামগ্রী প্রদান থেকে বিরত থেকেছেন। নিশ্চয় সরকারি এই নির্দেশনার পর পরিস্থিতির উন্নতি হবে। ওইসব মানুষেরা সরকারের দেয়া ত্রাণ সামগ্রী লাভ করবেন।
করোনা ভাইরাস সারা পৃথিবীর মতো বাংলাদেশেও মহামারি আকারে দেখা দিয়েছে। এ সময় দায়িত্বশীল মানুষের মানবিক মূল্যবোধের জাগরণ খুবই জরুরি। ভয়াবহ এই দূর্যোগে ক্ষুধার্ত মানুষের মানুষের পাশে দাঁড়ানোয় এখন মূল দায়িত্ব। আমাদের সবাইকে মিলে মানবতার বিপর্যয় কাটিয়ে ওঠার সংগ্রাম করতে হচ্ছে। এই দূর্যোগ মুহূর্তে মানুষকে বাঁচানোয় হবে প্রধান কাজ। ব্যক্তির অন্য কোনো পরিচয় যেন তার ত্রাণ পাওয়ার অধিকারকে খর্বিত করতে না পারে সেটাই দায়িত্বশীলদের নিশ্চিত করতে হবে। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী তাঁর এক বক্তৃতায় সেটাই ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মিদের এবং দায়িত্বশীলদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, কোনো দলীয় পরিচয়ে নয়Ñ ত্রাণ পাওয়ার যোগ্য প্রতিটি মানুষ যাতে সরকারের খাদ্য সহায়তা লাভ করে- সেটা নিশ্চিত করতে হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ