ত্রিপুরার স্বাস্থ্য সচিব সমেত ৪ কর্তাকে গ্রেফতারের নির্দেশ

আপডেট: জুলাই ৬, ২০২৪, ১২:৩৯ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক :


আদালত অবমাননার দায়ে ত্রিপুরা সরকারের মুখ পুড়ল উচ্চ আদালতে। স্বাস্থ্য দপ্তরের তিন শীর্ষ আমলা এবং ত্রিপুরা পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সচিবের বিরুদ্ধে সরাসরি গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করলো ত্রিপুরা হাইকোর্ট। মুখ্যমন্ত্রী ডা. মানিক সাহা-র হাতেই স্বাস্থ্য দপ্তর।

তাই এই আদেশে চিকিৎসক মুখ্যমন্ত্রী নিজেও যথেষ্ট বিড়ম্বিত। স্বাস্থ্য সচিব আইএএস কিরণ গিত্যে, স্বাস্থ্য অধিকর্তা ডা. সঞ্জীব দেববর্মা, জিবি হাসপাতালের সুপার ডা. শংকর চক্রবর্তী এবং টিপিএসসি-র সচিব ড. টি কে দেবনাথ-এর বিরুদ্ধে এই গ্রেফতারি পরোয়ানা জামিনযোগ্য হলেও চার জনকেই ২৪ জুলাই মামলার পরের তারিখে সশরীরে আদালতে হাজির হতে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি টি অমরনাথ গৌড়।

স্বাস্থ্য দপ্তরে মেডিকেল অফিসার নিয়োগ নিয়ে হাইকোর্টের আদেশ কার্যকর না করায় বৃহস্পতিবার এই আদেশ দেন বিচারপতি। ২০২৩ সালে দু’জন চিকিৎসক হাইকোর্টে রিট করে দাবি করেন, ২০২১-এর মেডিকেল অফিসার নিয়োগ প্রক্রিয়ায় তাঁদের অন্যায়ভাবে বঞ্চিত করা হয়েছে।

আদালতে পেশ করা রাজ্য সরকারের হলফনামায় বলা হয়েছিল, মেডিক্যাল অফিসারের ১৬৪টি পদের মধ্যে ১৫৬টিতে নিয়োগ হয়েছে। হাইকোর্ট সব পরীক্ষা করে বঞ্চিত দুই আবেদনকারীকে নিয়োগের নির্দেশ দেয়। স্বাস্থ্য দপ্তর এই আদেশ কার্যকর না করায় আদালত অবমাননার মামলা হয়।

হাইকোর্ট নোটিস ধরায় চার জনকে। ২ জুলাই স্বাস্থ্য দপ্তরের উপসচিব জানান, নিয়োগ হবে না, কারণ পদ খালি নেই ! আবেদনকারীদের আইনজীবী পুরুষোত্তম রায়বর্মন আদালতে বলেন, ৮টি পদ খালি আছে জেনেই হাইকোর্ট নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছিল। সরকার আদালত অবমাননা করেছে। তারপরই ওই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে হাইকোর্ট।
তথ্যসূত্র: আজকাল অনলাইন

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ