থাইলান্ডে অনূর্ধ্ব-১৬ মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশের অভিযান সোমবার

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৭, ১২:২৬ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


সৈকতে হালকা স্ট্রেচিং করার সময় কৃষ্ণা-সানজিদাদের চনমনে দেখা গেছে

লিভারপুলের পাঁড় সমর্থক ট্যাক্সি ড্রাইভার লি সাং। সময় পেলেই টেলিভিশনের সামনে বসে পড়েন প্রিয় দলের খেলা দেখতে। শহরে ফুটবল উৎসব শুরু হচ্ছে শুনে ভীষণ খুশি এই ট্যাক্সি চালক। আজ থেকে থাইল্যান্ডের চনবুরি শহরে শুরু হচ্ছে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপ। স্টেডিয়ামে বসে খেলা দেখতে তর সইছে না সাংয়ের।
এশিয়ার সেরা আট দলের এমন ময়দানি লড়াইয়ে খেলতে নামতে তর সইছে না কৃষ্ণা-সানজিদাদেরও। আগামী বছরের অনূর্ধ্ব-১৭ মহিলা বিশ্বকাপের বাছাইপর্বও এটা। এই টুর্নামেন্টের সেরা তিনটি দল সুযোগ পাবে উরুগুয়ের অনূর্ধ্ব-১৭ মহিলা বিশ্বকাপে।
টুর্নামেন্টের প্রথম দিনে আজ হবে দুটি ম্যাচ। প্রথম ম্যাচে চিনের প্রতিপক্ষ দক্ষিণ কোরিয়া, পরের ম্যাচটিতে স্বাগতিক থাইল্যান্ড মুখোমুখি হবে লাওসের। বাংলাদেশের এএফসি অভিযান অবশ্য আগামীকাল সোমবার শুরু হবে। প্রথম ম্যাচেই প্রতিপক্ষ বর্তমান চ্যাম্পিয়ন উত্তর কোরিয়া।
চনবুরির স্থানীয় হোটেলে গতকাল দুপুরে হয়ে গেল আট দলের কোচদের নিয়ে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলন। ট্রফি হাতে হাসিমুখে ছবির জন্য পোজ দিলেন আট কোচ।
বাংলাদেশের কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনের জন্য অভিজ্ঞতাটা একেবারে নতুন। প্রতিপক্ষ কোচেরা নিজেদের প্রত্যাশা ও প্রস্তুতির গল্পটা শোনানোর ফাঁকে বললেন বাংলাদেশ প্রসঙ্গে। দুর্বল বলে তাচ্ছিল্য করেননি কেউ। বরং বদলে যাওয়া বাংলাদেশকে বেশ সমীহ করেছেন চিন, জাপান, উত্তর কোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া দলের কোচেরা। গোলাম রব্বানী এটিকে প্রেরণা হিসেবেই দেখছেন, ‘এখানে সবাই আমাদের মেয়েদের প্রশংসা করেছে। উত্তর কোরিয়া, জাপান, অস্ট্রেলিয়া অনেক উঁচুমানের দল। ওদের মন্তব্যগুলো শুনে ভালো লেগেছে। ওরা আমাদের সমীহ করছে, এটা আমাদের জন্য অনুপ্রেরণা।’
থাইল্যান্ডে বেশ ফুরফুরে মেজাজে পাওয়া গেল কৃষ্ণা-সানজিদাদের। সকালে সৈকতে হালকা স্ট্রেচিং করার সময়ে যেমন চনমনে দেখা গেছে, দুপুরে খাবার টেবিলে যাওয়ার সময় হোটেল লবিতেও পাওয়া গেল তেমনই হাসিখুশি চেহারায়। সন্ধ্যায় চনবুরি স্টেডিয়ামের পাশের মাঠে অনুশীলন সেরেছে বাংলাদেশ দল। সারা বছর অনুশীলন আর প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে এবার চূড়ান্ত পরীক্ষায় নামার জন্য তর সইছে না কারও। মেয়েদের এই বদলে যাওয়া দেখে খুশি কোচ গোলাম রব্বানী, ‘ওদের চালচলনেও অনেক পরিবর্তন এসেছে। খেলার জন্য তারা মানসিকভাবে প্রস্তুত।’
এশিয়ার মহিলা ফুটবলের ভবিষ্যৎ তারকা হওয়ার লড়াইটা শুরু হয়ে যাবে আগামীকাল। বড় মঞ্চে জ্বলে ওঠার জন্য এই সুযোগটা লুফে নিতে প্রস্তুত সানজিদা, কৃষ্ণা, স্বপ্নারা। অস্ট্রেলিয়া, জাপান, উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে খেলে সত্যিকারের তারকা হওয়ার এমন সুযোগ বারবার হয়তো না-ও আসতে পারে!-প্রথম আলো অনলাইন