থেমে নেই দ্বিজেনের জীবন যুদ্ধ

আপডেট: সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৭, ১:০৮ পূর্বাহ্ণ

আমানুল হক আমান, বাঘা


রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানী স্টেশন বাজারের ভিতর দিয়ে হাটতেই চোখে পড়ে রাস্তার পাশে বসা এক তালা-চাবি মেরামতকারী। বাম হাত আর ডান পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুলী দিয়ে চলছে এই মেরামত কাজ। মেরামতকারী হলেন প্রতিবদ্ধী দ্বিজেন্দ্রনাথ সরকার। তাকে সবাই দ্বিজেন বলেই ডাকে। বয়স ৫৮ বছর। তার বাড়ি আড়নী স্টেশন বাজার সংলগ্ন বেড়েরবাড়ি গ্রামে। দ্বিজেনের বয়স যখন দেড় বছর তখন খেলতে খেলতে মাটিতে পড়ে যায় দ্বিজেন। এর পর জ্বর, আর তার পরেই দুই হাত এবং দুই পা শুকিয়ে যেতে থাকে।
জানা যায়, দরিদ্্র বাবা-মা সে সময়ে অর্থাভাবে চিকিৎসা করাতে পারে নি। এরপর থেকেই তিনি প্রতিবন্ধী। শরীরের ডান পাশ একেবারেই অকেজো হয়ে গেছে। তবে তার বাম হাতের অগ্র ভাগে কিছুটা শক্তি পান তিনি। এই নিয়ে ১৬ বছর বয়সে তালা-চাবি মেরামতের কাজে নেমে পড়েন। তালা-চাবি মেরামতের কাজ নিজ চোখে না দেখলে বিশ্বাস করা যাবে না। ডান পায়ের বৃদ্ধাঙ্গুলী দিয়ে চেপে ধরে বাম হাতের সহযোগিতায় তিনি জীবন যুদ্ধ করে চলেছেন। চোখ সামান্য সমস্যা থাকায় একটা ভাঙ্গা চশমা ব্যবহার করেন। এই মেরামতের কাজ করে তিনি প্রতিদিন যে টাকা আয় করেন তা সামান্য। এ আয় দিয়েই পরিবারের খরচ জোগান। দ্বিজেনের এক ছেলে এক মেয়ে। ছেলে নিপেন (৩০) বিয়ে করেই আলাদা হয়ে যায়। মেয়ে নিয়তি রানী সরকারকে (২২) বিয়ে দিয়েছেন। বয়সের ভারে আর কাজ করতে পারেন না। ফলে সংসার চালানো দায় হয়ে পড়েছে। একদিকে দ্রব্য মূল্যের উর্ধ্বগতি, অন্য দিকে তেমন কাজ কর্ম না থাকায় মাত্র ৫০ থেকে ৬০ টাকা আয় করে কোন দিন দু-বেলা দু-মুঠো খাবার জোটে আবার কোন দিন জোটে না। কথা বলতে বলতেই কেঁদে ফেললেন দ্বিজেন। দ্বিজেনের চোখের পানি বলে দিচ্ছে তিনি কতটা কষ্টে আছেন। কাঁদতে কাঁদতে তিনি আরো বলেন, নিজের কোন স্থায়ী জায়গা নেই, যে জায়গায় বসে তিনি কাজ করেন, সেটাও আড়নী স্টেশন বাজার হায়দার আলীর সাইকেল পার্টসের দোকানের বারান্দা।
তিনি বলেন, এই বারান্দা ওই বারান্দা এভাবেই চলছে তার কাজ। প্রতিদিন বাড়ি থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার পথ এক হাত আর এক পায়ের উপর ভর করেই পড়ি দিয়ে বাজারে আসেন দ্বিজেন। তিনি আরো বলেন, জীবনে তেমন কেউ কোন দিন সাহায্য করে নি। বাঘা প্রতিবন্ধী সমিতি থেকে মাসে কিছু টাকা পাচ্ছি। তাই তিনি সমাজের বিত্তবান ও হৃদয়বান ব্যক্তিদের কাছে একটি দোকান ঘর তৈরিতে সহযোগিতা চেয়েছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ