দক্ষিণ এশিয়ার জিহাদিদের সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত করেছে যুক্তরাষ্ট্র

আপডেট: ডিসেম্বর ৩, ২০২২, ১২:৪০ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক :


ওয়াশিংটন, ২ ডিসেম্বর, ২০২২(বাসস ডেস্ক): যুক্তরাষ্ট্র বৃহস্পতিবার ঘোষণা করেছে, তারা দক্ষিণ এশীয় আল-কায়েদা এবং পাকিস্তানি তালেবান নেতাদের সন্ত্রাসী হিসেবে চিহ্নিত করছে। আফগানিস্তানে শঙ্কা বাড়ার সাথে সাথে পদক্ষেপের নেয়ার অঙ্গীকার করেছে যুক্তরাষ্ট্র।
জিহাদি নেটওয়ার্কের আঞ্চলিক শাখা আল-কায়েদা ইন দ্য ইন্ডিয়ান সাবকন্টিনেন্ট’র (একিউআইএস) স্বঘোষিত ‘আমির’ ওসামা মেহমুদসহ এর চার নেতা এই সন্ত্রাসী তালিকায় রয়েছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পাকিস্তানি তালেবানের দুই নম্বর ব্যক্তি কারী আমজাদ হিসেবে পরিচিত মুফতি হজরত দেরোজিকেও এই তালিকায় রাখা হয়েছে। যার ১৫ বছরের সহিংসতার প্রচারণা গত বছর প্রতিবেশী আফগানিস্তানে তালেবানের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর থেকে বৃদ্ধি পেয়েছে।

মার্কিন কর্মকর্তারা বলছেন, দেরোজি খাইবার পাখতুনখোয়ায় তালেবান অভিযানের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। এতে দু’টি সীমান্ত এলাকা সহিংস হামলার শিকার হয়েছে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘সন্ত্রাসীরা যাতে আফগানিস্তানকে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদের প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ব্যবহার না করে তা নিশ্চিত করার জন্য আমাদের নিরলস প্রচেষ্টার অংশ।’

বিøঙ্কেন বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসীরা যাতে আফগানিস্তানে দায়মুক্তির সাথে কাজ করতে না পারে তা দেখার জন্য আমাদের প্রতিশ্রুতি বজায় রাখতে আমরা সমস্ত প্রাসঙ্গিক সরঞ্জাম ব্যবহার করতে থাকব।’

স্টেট ডিপার্টমেন্ট এবং ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট এই চারজনকে বিশেষভাবে চিহ্নিত গ্লোবাল টেররিস্ট হিসেবে তালিকাভুক্ত করেছে। তাদের সাথে লেনদেনে জড়িত হওয়া মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অপরাধ হিসেবে গণ্য করে এবং যুক্তরাষ্ট্র তাদের যেকোন সম্পদকে ব্রক করবে।

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন দুই দশক পর আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহার করে বলেছিলেন যে আর কিছু অর্জন করা যাবে না এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সরাসরি সেনা উপস্থিতি ছাড়াই জঙ্গিদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র গত ৩১ জুলাই দু’টি ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ে আল-কায়েদার নেতা আয়মান আল-জাওয়াহিরিকে হত্যা করেছে, যিনি কাবুলে চলে গিয়েছিলেন।
আল-কায়েদাকে আশ্রয় দেবে না যুক্তরাষ্ট্রের কাছে তালেবানদের দেয়া এই আশ্বাস লঙ্ঘনের জন্য তালেবানকে অভিযুক্ত করেছে। ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর টুইন টাওয়ার হামলার পর আল কায়েদাকে আশ্রয় দেয়ার ঘটনায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দেশটিতে অভিযান শুরু করে।
তথ্যসূত্র: বাসস

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ