দম্পতির যে কোনও এক জনের জননকোষ দিয়েই করা যাবে গর্ভদান, নতুন আইন ভারতে

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২৪, ৩:১৫ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক :মাতৃত্ব ও গর্ভদান, এই দুই বিষয় নিয়ে জাতীয় কিংবা আঞ্চলিক কোনো স্তরেই আলোচনা বিরল নয়। এরই মধ্যে গর্ভদানের পুরনো আইনে বাধা পেয়ে গর্ভদানের মাধ্যমে মা হওয়ার পথ থেকে পিছিয়ে আসতে বাধ্য হচ্ছিলেন দেশের বহু নারী।

সেই বাধার কথা মাথায় রেখে কেন্দ্রীয় সরকার পরিবর্তন আনলো সারোগেসি বা গর্ভদানের ক্ষেত্রে। বিবাহিত দম্পতির মধ্যে স্বামী বা স্ত্রী কারও শারীরিক সমস্যা থাকলে, যে কোনো এক জনের সুস্থ জননকোষ ব্যবহার করেই এ বার গর্ভদানের পদ্ধতি নিয়ে সন্তান নিতে পারবেন তাঁরা।
সে ক্ষেত্রে সংশোধিত ‘গর্ভদান আইন, ২০২২’ অনুযায়ী জেলা মেডিকেল বোর্ডের সত্যায়ন লাগবে, যাতে উল্লেখ থাকবে, স্বামী বা স্ত্রীর মধ্যে কোনো এক জনের শারীরিক সমস্যা রয়েছে এবং জননকোষদাতার প্রয়োজন রয়েছে।

তবে দু’জনেরই শারীরিক প্রতিবন্ধকতা থাকলে চলবে না। সিঙ্গল মাদার বা একা-নারীরা (বিধবা বা বিবাহবিচ্ছিন্ন) নিজেদের ডিম্বাণু এবং শুক্রাণুদাতার সাহায্যে গর্ভদান প্রক্রিয়ায় সন্তানের জন্ম দিতে পারবেন।
এ ক্ষেত্রেও নারীকে নিজ ডিম্বাণু ব্যবহার করতে হবে। ডিম্বাণুদাতার সাহায্য নেয়া যাবে না।
পুরনো গর্ভদান আইনে দম্পতির দু’জনেরই জননকোষ ব্যবহার করা বাধ্যতামূলক ছিল। নির্দিষ্ট করে এই বিষয়টি বদল করেছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার উন্নয়ন মন্ত্রণালয়।

সুপ্রিম কোর্ট সাম্প্রতিক কালে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের নারীদের থেকে জননকোষ দান নিয়ে আবেদন পায়।
তাঁরা জানিয়েছেন, কোনো বিরল যৌন-সমস্যায় ভুগছেন তাঁরা। সে কারণেই তাঁরা গর্ভধারণ করতে পারছে না।
কিন্তু ডিম্বাণু-দানে অনুমতি না থাকায় গর্ভদান প্রক্রিয়ার সাহায্য নিয়েও মা হতে পারছেন না তাঁরা। এর পরেই আইন সংশোধনের কথা ভাবা শুরু হয়।
২০২৩ এর মার্চ মাসে গর্ভদান প্রক্রিয়ায় জননকোষ দানে নিষেধাজ্ঞা নিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। এর পরেই শীর্ষ আদালতের কাছে একের পর এক আবেদন আসতে শুরু করে।

গত বছর ডিসেম্বর মাসে সুপ্রিম কোর্ট পুরনো আইনটির যথার্থতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। শীর্ষ আদালত জানায়, ‘‘গর্ভদানের যে আসল লক্ষ্য, তা এই আইনে বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে।’’
গর্ভদান আইন নিয়ে শুনানি চলাকলে ১৪টিরও বেশি দম্পতিকে ডিম্বাণু-দাতার সাহায্য নেয়ায় অনুমতি দেয় সুপ্রিম কোর্ট।
এ বছর জানুয়ারি মাসে সুপ্রিম কোর্ট কেন্দ্রের কাছে প্রশ্ন করেন, এতো নারী ক্ষোভ নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হচ্ছেন, কেন সরকার বিষয়টি নিয়ে ভাবছে না?
জবাবে তখনই কেন্দ্রের প্রতিনিধি অ্যাডিশনাল সলিসিটর জেনারেল ঐশ্বর্য ভাটি জানিয়েছিলেন, গর্ভদান আইনে সংশোধন নিয়ে ভাবনাচিন্তা করছে কেন্দ্র।
তথ্যসূত্র: আনন্দবাজর অনলাইন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ