দরিদ্রদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ

আপডেট: এপ্রিল ৩, ২০২০, ১১:০৭ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


কনোরা ভাইরাসের কারণে দরিদ্র ও নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে খাদ্যসমগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার রাজশাহী মহানগর যুবলীগ, বিআরটিএ ও কাঁকনহাট পৌর মেয়রের উদ্যোগে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে।
যুবলীগ: ১৮ নম্বর ওয়ার্ডে নগর যুবলীগের উদ্যোগে অসহায়দের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। দুপুরে নগরীর জিয়া পার্ক সংলগ্ন খানকা শরীফ এলাকায় ২০০ পরিবারে মাঝে এ খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, নগর যুবলীগের সভাপতি রমজান আলী ও নগর যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তৌরিদ আল মাসুদ রনি প্রমুখ।
বিআরটিসি:
বিআরটিসি’র দিনমজুরদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার। বিকেলে বিআরটিসি এর রাজশাহী ডিপোতে এ খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। খাদ্য সামগ্রীর প্রতিটি প্যাকেটে ছিলো- ১০ কেজি চাল, ২ কেজি আলু, ১ লিটার তেল, ১ কেজি ডাল ও ২ কেজি আলু। মোট ১৫০ টি প্যাকেট বিতরণ করা হয়।
এসময় ডাবলু সরকার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী করোনায় কর্মহীন হয়ে পড়া দিনমজুরদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছি। পাশাপাশি তাদের করোনা সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে বিভিন্ন দিক নির্দেশনা শেখানোর চেষ্টা করছি।
কাঁকনহাট পৌর মেয়র:
রাজশাহীর কাঁকনহাট পৌর মেয়র আব্দুল মজিদ তার ব্যাক্তি উদ্যোগে অসহায়দের ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছেন। সকালে অসহায় ও কর্মহীন ১ হাজার মানুষকে চাল, ডাল, আটা ও আলুসহ প্রায় ১০ কেজি খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন তিনি।
প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে তানোর-গোদাগাড়ী আসনের সাংসদ ওমর ফারুক চৌধুরী এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। পরে প্রতিটি ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের নেতাদের মাধ্যমে অসহায় পরিবারের বাড়িতে গিয়ে এই খাদ্যসামগ্রী তুলে দেয়ার ব্যবস্থা করেন মেয়র।
আসাদুজ্জামান আসাদ:
গোদাগাড়ী পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বারইপাড়া গ্রামের কর্মহীন খেটে খাওয়া মানুষদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছে, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ।
এই সময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক ও গোদাগাড়ী পৌরসভার মেয়র মনিরুল ইসলাম বাবু, জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সামাউন ইসলাম, আওয়ামী লীগ নেতা ফারুক আহমেদ প্রমুখ।
এ সময় আসাদ বলেন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা, সমাজের বিত্তশালী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানসমূহ এই দুূর্যোগের সময় দিনমজুর, শ্রমিক, কৃষক, খেটে খাওয়া দরিদ্র জনগোষ্ঠীর পাশে দাঁড়াতে হবে। সরকারের পাশাপাশি আমাদেরও উচিত তাদের পাশে দাঁড়ানো। যার যে অবস্থান থেকে দূর্যোগের মোকাবেলা করার জন্য এগিয়ে আসতে হবে। দেশের সংকটের সময় করোনা ভাইরাসের নির্দেশনা মোতাবেক সামাজিক দূরুত্ব বজায় রেখে হতদরিদ্র, কৃষি শ্রমিক, দিনমজুর, রিক্স/ভ্যান চালক, পরিবহন শ্রমিক, ভিক্ষুক, প্রতিবন্ধী, পথশিশু, স্বামী পরিত্যক্তা/বিধবা নারী এবং হিজড়া সম্প্রদায়ের মানুষের পাশে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়ে দেশকে রক্ষা করতে হবে এবং সাথে দরিদ্র সাধারণ মানুষগুলোকেও বাঁচাতে হবে। তা না হলে দেশের মধ্যে এই ভাইরাস মহামারী আকার ধারণ করলে শুধু হতদরিদ্র, শ্রমিক, দিনমজুর, ভিক্ষুক এরাই বিপদে পড়বে না। করোনা ভাইরাসে ধনী, উচ্চবিত্ত, নিম্নবিত্ত কেউ ছাড় পাবে না। এই সমস্ত দিকে লক্ষ্য রেখে দেশের মানুষকে নিরাপদ ও নিজে নিরাপদ থাকার জন্য এখনই এগিয়ে আসতে হবে।