দিনে পেতেন ১৩০ টাকা, এখন ৪৬০ কোটি টাকার মালিক

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১, ৭:১৩ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


গ্রেফতার নুরুল ইসলাম

দৈনিক ১৩০ টাকা মজুরিতে টেকনাফ স্থল বন্দরে কাজ করা কর্মচারী এখন ৪৬০ কোটি টাকার মালিক। তার সম্পদের মধ্যে রয়েছে ঢাকায় ছয়টি বাড়ি, ১৩টি প্লট এবং সাভার, টেকনাফ, সেন্ট মার্টিন, ভোলাসহ বিভিন্ন জায়গায় রয়েছে অন্তত ৩৭টি প্লট। মাত্র ২০ বছর অবৈধ দালালি করে এই সম্পদ অর্জন করেছে সে। র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার এই ব্যক্তির নাম নুরুল ইসলাম (৪১)।

মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে র‌্যাবের মুখপাত্র খন্দকার আল মঈন এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, “নুরুল ইসলাম ২০০১ সালে টেকনাফ স্থল বন্দরে ১৩০ টাকা দৈনিক মজুরিতে চুক্তিভিত্তিক কাজ করতো। বন্দরে কর্মরত থাকাকালীন তার অবস্থানকে কাজে লাগিয়ে সে চোরাকারবারি, শুল্ক ফাঁকি, অবৈধ পণ্য খালাস, দালালি ইত্যাদির কৌশল রপ্ত করে। পরে সে বন্দরে বিভিন্ন রকম দালালির সিন্ডিকেটে যুক্ত হয়। এক পর্যায়ে সে নিজেই তৈরি করে একটি দালালি সিন্ডিকেট। ২০০৯ সালে চাকরি ছেড়ে দিয়ে সে তারই আস্থাভাজন একজনকে ওই কম্পিউটার অপারেটর পদে নিয়োগের ব্যবস্থা করে। তবে দালালি সিন্ডিকেটটির নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখে সে। এভাবে সে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়।”

গত সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) মধ্যরাতে রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।

এসময় তার কাছ থেকে ৩ লাখ ৪৬,৫০০ মিয়ানমার মুদ্রা, ৩ লাখ ৮০,০০০ টাকা, ইয়াবা ৪,৪০০ পিস, নগদ ২ লাখ ১,১৬০ টাকাসহ জাল টাকা জব্দ করা হয়েছে।
প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত নুরুল ইসলাম তার অপরাধ সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে বিভিন্ন তথ্য প্রদান করে।
তথ্যসূত্র: বাংলাট্রিবিউন