দিলীপ ঘোষকে সরিয়ে দিল বিজেপি

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২২, ২০২১, ৮:০০ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


বঙ্গ বিজেপিতে বড় চমক! পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির সভাপতি পদ থেকে সরানো হলো দিলীপ ঘোষকে। তার জায়গায় নতুন সভাপতি হচ্ছেন আর এক সংসদ সদস্য ড. সুকান্ত মজুমদার।

বিজেপির সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অরুণ সিং সোমবার (২০ সেপ্টম্বর) এ খবর জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জগৎপ্রকাশ নাড্ডাই এ রদবদল করেছেন।

রাজ্য সভাপতি হিসেবে দিলীপ ঘোষের মেয়াদ ফুরানোর কথা ২০২৩ সালের জানুয়ারি মাসে। সময়সীমার এতটা আগেই তাকে সরিয়ে দেওয়া হবে তা ঘুণাক্ষরেও টের পায়নি দিলীপ ঘোষ। তবে সুকান্ত মজুমদারই যে আগামী বিজেপির রাজ্য সভাপতি হিসেবে মনোনীত তার একটা আন্দাজ করাই গিয়েছিল।

তবে সময়ের আগেই রাজ্য সভাপতির পদ থেকে দিলীপ ঘোষকে সরানো হলেও আরও বড় দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে তাকে। বিজেপির জাতীয় সহ-সভাপতি পদে তাকে নিযুক্ত করা হবে। রাজ্যর নতুন দায়িত্ব পেয়ে সভাপতি সুকান্ত মজুমদার বলেছেন, নেতারা আসবে যাবে। কিন্তু দল থাকবে। দলকে শক্তিশালী করাই মূল লক্ষ্য।

মুলত একুশের বিধানসভা ভোটে দক্ষিণবঙ্গের তুলনায় উত্তরবঙ্গ ভালো ফল করেছিল। রাজ্যের বিরোধীদলের যতগুলো বিধায়ক তার বেশির ভাগই উত্তরবঙ্গের। এর ফলে উত্তরবঙ্গ থেকে দলের রাজ্য সভাপতি মনোনীত করা হয়েছে বলে রাজনৈতিক মহলের ধারণা।

তবে রাজ্যের উপ-নির্বাচনের আগে এতবড় ঘোষণা করবেন তা দিলীপ ঘোষও ধারণাই করতে পারেননি। বর্তমানে দল বদলের খেলায় বিজেপিতে বড় ভাঙন ধরাচ্ছে মমতার দল। দল ত্যাগীরা তৃণমূলে যোগদান করেই দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিচ্ছেন। তাদের মতে ভোটের আগে বিজেপি আয়োজিত যোগদান মেলায় বাছবিচার না করেই যাকে তাকে দলে নেওয়া হয়েছে। তাই বিজেপির বঙ্গ ভোটে এত বড় বিপর্যয়। এ দায় দিলীপ ঘোষের কাঁধেই ঠেলে দিয়েছেন তারা। সম্প্রতি বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে গেছেন সঙ্গীত শিল্পী বাবুল সুপ্রিয়ে। তিনিও একই কথা বলেছিলেন।
তথ্যসূত্র: বাংলানিউজ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ