দুই দলের সুযোগ দেখছেন বাংলাদেশের অধিনায়ক

আপডেট: মার্চ ৭, ২০১৭, ১২:২২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



২০১৩ সালে বাংলাদেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে মুশফিকুর রহিম গলে ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন। তার ব্যাটিং নৈপুণ্যে সাঙ্গাকারা-জয়বর্ধনদের বিপক্ষে ড্র করেছিল বাংলাদেশ। চার বছর পর ওই গলেই ফের মুখোমুখি হচ্ছে দুই দল।
আর ওই অতীত সুখস্মৃতি আকঁড়ে ধরে থাকতে চান না মুশফিক। মঙ্গলবার নতুন করে শুরু করতে চান তিনি। তার দৃষ্টিতে টেস্ট সিরিজে দুই দলেরই সমান সুযোগ থাকছে।
ঘরের মাঠে গত দুই বছর ধরে সাফল্য ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। চলতি বছর নিউজিল্যান্ড ও ভারত সফরে গিয়ে দুটি সিরিজ খেললেও কোনও জয় পায়নি বাংলাদেশ। বদলে যাওয়া বাংলাদেশের তৃতীয় বিদেশ সফর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে।
দুই দলেই হয়েছে ব্যাপক পরিবর্তন। শক্তিমত্তার দিক থেকে বাংলাদেশের উন্নতি হলেও শ্রীলঙ্কা কিছুটা পিছিয়েছে। যদিও গত বছর অস্ট্রেলিয়াতে নিজেদের কন্ডিশনে ৩-০ তে হারিয়েছিল শ্রীলঙ্কা। সবকিছু মিলিয়ে বাংলাদেশের অধিনায়কের বিশ্বাস-টেস্ট সিরিজে দুই দলেরই সমান সুযোগ থাকছে, ‘এর আগেও আমি বলেছি ওদের দলে অনেকগুলো পরিবর্তন আছে। অনেক সিনিয়ার ক্রিকেটার দলে নেই। আমাদের দলেও বেশ কিছু নতুন ক্রিকেটার এসেছে। আমি মনে করি সব মিলিয়ে দুই দলেরই পাঁচদিনে ফল বের করে নেওয়ার ভালো সুযোগ আছে। আমাদের অবশ্যই ওদিকে মনযোগী হতে হবে।’
২০১৬ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজের সবগুলো জিতেছে শ্রীলঙ্কা। গলে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচটিতে ২২৯ রানের বড় ব্যবধানে জিতেছিল স্বাগতিকরা। মুশফিক বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দিলেন, ‘তারা জানে তাদের হোম কন্ডিশনে কীভাবে ভালো ক্রিকেট খেলতে হবে। কীভাবে ফল বের করে আনতে হবে সেটাও। ওরা অস্ট্রেলিয়ার মতো চ্যাম্পিয়ন দলের বিপক্ষে ৩-০ ব্যবধানে জিতেছে। এটা আমাদের মাথায় রাখতে হবে। সামনে আমাদের কঠিন সময় অপেক্ষা করছে। ইনশাআল্লাহ  সামনের কঠিন সময় মোকাবিলা করতে আমরা সবাই প্রস্তুত।’
শেষ দুটি সিরিজের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে মুশফিক বলেছেন, ‘আমরা শেষ সিরিজগুলোতে তিন-চারদিন ম্যাচে ছিলাম। এ ম্যাচটিতে আমরা যেন পুরোপুরি প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলতে পারি এবং ফল আমাদের পক্ষে আনতে পারি, সেই চেষ্টা থাকবে।’
বড় ইনিংস গড়তে গেলে দলের টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের দায়িত্ব নিতে হবে। মুশফিকের বিশ্বাস যারা ফর্মে নেই তারা এই সিরিজে আগের ফর্মে ফিরতে পারবে, ‘টেস্ট ক্রিকেটে টপ অর্ডার কিংবা মিডল অর্ডার বলেন আপনাকে অবশ্যই বড় ইনিংস খেলতে হবে। এটা খেললে দলের জন্য সহায়ক হয়। আমি এতটুকু বলতে পারি- শেষ কয়েকটা ম্যাচে যারা আমাদের দলে পারফর্ম করতে পারেননি তারা এই সিরিজে ফর্মে ফিরবেন।’
২০১৩ সালে গল টেস্টে দল ও ব্যক্তিগত কীর্তি মুশফিককে অনুপ্রেরণা যোগালেও অতীত নিয়ে আকঁড়ে থাকতে চান না তিনি, ‘অতীত যদি ভালো থাকে, অবশ্যই সেটা অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করে। এটা অবশ্যই আত্মবিশ্বাস যোগাবে। তবে আমি বারবার বলছি ওদের আক্রমণ পুরোপুরি বদলে গেছে। হেরাথ ছাড়া ওই টেস্টে এখন পর্যন্ত আর কেউ নেই। আমাদের জন্য অবশ্যই চ্যালেঞ্জিং হবে এটা। একই সঙ্গে আমরা ব্যাটিং পরিকল্পনা ঠিকভাবে কাজে লাগাতে না পারলে আমাদের চেষ্টা ব্যর্থ হবে।’
তিনি আরও যোগ করেন, ‘সাঙ্গাকারা, ম্যাথুস থাকার পর আমরা যে দলগত সাফল্য পেয়েছিলাম তা সত্যিই ভালো দিক। এটা আমাদের আত্মবিশ্বাসী করে তুলবে। এখানে এখন নতুন করে শুরু করতে হবে আমাদের।’-বাংলা ট্রিবিউন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ