‘দুদকে গোয়েন্দা ইউনিট গঠন করা হবে’

আপডেট: এপ্রিল ৫, ২০১৭, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের শ্রেষ্ঠ জেলা ও উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্যদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন দুদক কমিশনার এএফএম আমিনুল ইসলাম – সোনার দেশ

রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের শ্রেষ্ঠ জেলা ও উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির মাঝে পুরস্কার বিতরণ ও আলোচনা সভায় দুদকের কমিশনার এএফএম আমিনুল ইসলাম বলেছেন, রাষ্ট্রের আইনের বাইরে কেউ না। দুর্নীতি করে পার পাওয়ার দিন শেষ। দুর্নীতিবাজরা কালো টাকা লুকিয়ে রাখতে পারবে না। দুদকের নিজস্ব গোয়েন্দা ইউনিট করা হযেএ গোয়েন্দা সদস্যদের সঠিক তথ্যের ভিত্তিতে দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে আইনগত তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে জেলা কার্যালয় দুর্নীতি দমন কমিশনের উদ্যোগে আয়োজিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, দুদকের পঞ্চবার্ষিকী কৌশলগত কর্মপরিকল্পনা বস্তবায়নের অগ্রাধিকার তালিকায় এটি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। দুদক কর্মকর্তাদের পাশাপাশি এই গোয়েন্দা ইউনিটও তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ এবং অভিযোগের অনুসন্ধান করবে। সমাজের খারাপ ব্যক্তি তারা যারা ওপরে সততার কথা বলে এবং অন্তরালে দুর্নীতি করে। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে স্বাধীন দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা কয়েকজন দুর্নীতিবাজদের জন্য ব্যহত করতে দিবো না।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন দুদকের পরিচালক (তদন্ত) মনিরুজ্জামান, দুদকের রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক আবদুল আজিজ ভুঁইয়া, রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার নূর-উর-রহমান ও রাজশাহী মহানগর পুলিশের কমিশনার শফিকুল ইসলাম।
কমিশনার বলেন, নির্ভুল অনুসন্ধান ও তদন্ত কার্যক্রমে গতি আনতে নিজস্ব গোয়েন্দা ইউনিট গঠনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। আমরা ধাপে ধাপে এগিয়ে যাচ্ছি। দুর্নীতি দমন কমিশন আরো সচেতন হয়ে কাজ করছে। ইতোমধ্যে এই কমিশন ৪৫০ জন দুর্নীতিগ্রস্ত কর্মকর্তা-কর্মচারিকে গ্রেফতার করেছে। নিজস্ব গোয়েন্দা ইউনিট হলে এ সংখ্যা আরো বাড়বে।
অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক ছিলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের প্রফেসর এন.কে নোমান। স্বাগত বক্তব্য দেন, রাজশাহী মহানগর দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ইয়াহিয়া মোল্লা। এতে সভাপতিত্ব করেন, রাজশাহী জেলা প্রশাসক কাজী আশরাফ উদ্দীন। পরিচালনা করেন, সাংস্কৃতিক কর্মী মনিরা রহমান মিঠি।
আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বগুড়া জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সাবেক অতিরিক্ত সচিব আবদুর রহিম ও রংপুর জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আকবর হোসেন বক্তব্য দেন। আলোচনা শেষে বিভাগের শ্রেষ্ঠ দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটিগুলোর মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।
জেলা পর্যায়ে এ বছর রাজশাহী বিভাগে শ্রেষ্ঠ হয়েছে বগুড়া জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি। উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ হয়েছে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া কমিটি। রংপুর বিভাগের শ্রেষ্ঠ হয়েছে রংপুর জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি। এ বিভাগে উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ কাউনিয়া উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি। অনুষ্ঠানে এসব কমিটির সকল সদস্যকে পুরস্কৃত করা হয়। আলোচনা শেষে পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করা হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ