দুর্গাপুরে আ’লীগ নেতার বিরুদ্ধে ধর্ষণ চেষ্টার মামলা

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৭, ১২:২৯ পূর্বাহ্ণ

দুর্গাপুর প্রতিনিধি


রাজশাহী দুর্গাপুরের পানানগর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বশির আহাম্মদের (৪০) বিরুদ্ধে ধর্ষণ চেষ্টার মামলা দায়ের করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার পানানগর গ্রামের এক গৃহবধূ (৩০) রাজশাহীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এ মামলাটি করেন।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার পানানগর ডাঙ্গিরপাড়া গ্রামের জনৈক ব্যবসায়ীর স্ত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায় পানানগর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বশির আহাম্মদ। গত ৩১ আগস্ট সকালের দিকে বশির আহাম্মেদ ভিকটিমের বাড়িতে প্রবেশ করে। বশির ভিকটিমের বাড়িতে কোন লোকজন না থাকায় সুযোগ বুঝে নতুন কেনা ফ্রিজ দেখতে চান। এ সময় ভিকটিমের স্বামী ব্যবসায়িক কাজে বাড়ির বাইরে ছিলেন। ফ্রিজ দেখার নামে ঘরে ঢুকে বশির পেছন থেকে ওই গৃহবধূকে জাপটে ধরে ধর্ষণের চেষ্টা করলে গৃহবধূর চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসলে বশির পালিয়ে যায়। পরে বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে বশির। কিন্তু কয়েকদিন পর ঘটনাটি জানাজানি হয়ে পড়লে গ্রাম্য সালিশে বিচারের আশ্বাস দেয়া হয়। গত ১১ সেপ্টেম্বর সালিশী বৈঠক বসলেও বৈঠকে হাজির ছিলেন না অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ নেতা বশির আহাম্মদ। এ কারণে এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে বশির আহাম্মদের শাস্তির দাবিতে একই দিন পানানগর ইউনিয়ন পরিষদ ঘেরাও করে এবং শাস্তির দাবিতে বাজারে লিফলেট বিতরণ ও ব্যানার ফেস্টুুন নিয়ে মানববন্ধন করে। দুপুর প্রায় শতাধিক গ্রামবাসী অংশগ্রহণে সাড়ে ১২ টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত বশিরের শাস্তির দাবিতে বিভিন্ন কর্মসূচিসহ মানববন্ধন করা হয়।
এ ঘটনায় গত ১৭ সেপ্টেম্বর থানায় মামলা করতে গেলে থানার ওসি ভিকটিমকে আদালতে মামলা দায়ের করার পরামর্শ দেন বলেও এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে। এরপর গত মঙ্গলবার ভিকটিম নিজেই বাদি হয়ে রাজশাহীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে আওয়ামী লীগ নেতা বশির আহাম্মদের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন। মামলার আইনজীবী অ্যাডভোকেট নবাব আলী জানান, আদালতে পিটিশনটি দায়ের করা হলে আদালত তা আমলে নিয়ে দূর্গাপুর থানার ওসিকে এজাহার হিসেবে রুজ্জু করা নির্দেশ দিয়েছেন।
দূর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রুহুল আলম বলেন, ধর্ষশ চেষ্টার কোন অভিযোগ নিয়ে থানায় কেউ আসে নি। আসলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি আরো জানান, রাজশাহীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এ মামলা দায়ের বিষয়টি লোকমাধ্যমে শুনেছি। তবে মামলার এজাহারে থানায় মামলা না নিয়ে আদালতে যাওয়ার পরার্মশের বিষয়টি অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, আদালত থেকে মামলার কপি আসলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ