দুর্গাপুরে জামাত-শিবিরের হামলায় ছাত্রমৈত্রী নেতা আহত অভিযোগ নেয় নি পুলিশ

আপডেট: অক্টোবর ১৬, ২০১৬, ১১:৪৪ অপরাহ্ণ

দুর্গাপুর প্রতিনিধি
দুর্গাপুরে জামায়াত-শিবিরের হামলায় থানার ছাত্রমৈত্রীর সহসভাপতি আফজাল হোসেন (২৬) গুরুতর আহত হয়েছেন। তিনি উপজেলার সূর্যভাগ গ্রামের ইয়াকুব আলীর ছেলে। গত শনিবার সকালে ছাত্রমৈত্রী নেতা আফজাল বেলঘরিয়া বাজারে গেলে জামায়াত-শিবিরের লোকজন হামলা চালিয়ে বেধড়ক মারপিট করে। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে দুর্গাপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করেন।

 
এদিকে ছাত্রমৈত্রী নেতা আফজালের উপর হামলার ঘটনা থানায় অভিযোগ করতে গেলে তা না নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে পুলিশের বিরুদ্ধে।
আহত ছাত্রমৈত্রী নেতা আফজাল হোসেন বলেন, জমিজমা সংক্রান্ত পূর্ব শুক্রতার জের ও কিছু দিন আগে আমার নিজস্ব এলাকায় বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পাটির লোগো সম্বলিত পোস্টার সাঁটানোর জেরধরে জামাত-শিবিরের কয়েকজন লোক ক্ষোভে ফেটে পড়ে। গত শনিবার সকাল ৮টার দিকে মোটরসাইকেল যোগে বাড়ি হতে বেঘরিয়া বাজারে পৌঁছাতেই একই গ্রামের জামাত-শিবিরের কর্মী হাবিবুর, সোহরাফ, সৈয়দ, হাফিজুল, জয়েনসহ কয়েকজন তার ওপর অর্তকিত হামলা চালায়। এসময় তারা কাঠের খামবা দিয়ে তাকে বেধড় মারপিট করে। পরে স্থানীয় লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে দুর্গাপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করে। তিনি বর্তমানে দুর্গাপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ১২নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছেন। তার বাম চোখ, হাত পা ও শরীরের বিভিন্ন অংশে গুরুতর জখমের চিহ্ন রয়েছে।

 
তিনি আরো জানান, ওই ঘটনায় তার নিজস্ব লোকজন থানায় অভিযোগ দাখিল করতে গেলে থানার পুলিশ তা নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। এজন্য তিনি এখন পর্যন্ত থানায় কোন অভিযোগ না দিতে পারার অভিযোগ করেছেন।
এ বিষয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রহুল আলম বলেন, অভিযোগ না নেয়া বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। এ বিষয়ে আমাকে কেউ কিছুই জানানো হয় নি। বিষয়টি দ্রুত খোঁজ নিয়ে দেখছি।