দুর্গাপুরে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগে আটক ২

আপডেট: জানুয়ারি ২৪, ২০২১, ১০:০৪ অপরাহ্ণ

দুর্গাপুর প্রতিনিধি:


রাজশাহীর দুর্গাপুরে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগে স্বামী ও সতীনকে আটক করেছে দুর্গাপুর থানা পুলিশ। রোববার (২৪ জানুয়ারি) ভোররাতে উপজেলার শ্রীধরপুর আংরারবিল এলাকায়। রোববার সকাল ৯টার দিকে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরির্দশনে গিয়ে স্বামী ও সতীনের পরিকল্পিত হত্যার সন্দেহে স্বামী আব্দুল লতিফ (৫০) ও আব্দুল লতিফের চতুর্থ স্ত্রী মৃতের সতীন আসমা (৩২) কে আটক করে থানায় নিয়ে আসে থানা পুলিশ।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, দুর্গাপুর উপজেলার শ্রীধরপুর আংরারবিল এলাকায় বাবু নামের এক পুকুর ব্যবসায়ীর পাহারাদারের কাজ করতো নাটোর জেলার আহম্মদপুর এলাকার আব্দুল লতিফ মোল্লা। পুকুর পাহারার দেওয়ার সুবাদে পুকুরের পাড়েই একটি খুপড়ি ঘর তুলে সেখানে তৃতীয় স্ত্রীসহ বসবাস করতেন। কিন্তু সবার অজান্তে আব্দুল লতিফ চতুর্থ স্ত্রী আসমাকে বিয়ে করেন। তৃতীয় স্ত্রী মৃত সাগরি বিয়ের বিষয়টি জানতে পারলে লতিফ বিয়ের বিষয়টি প্রথমে এড়িয়ে যায়। পরে শনিবার লতিফ তার চতুর্থ স্ত্রী নিয়ে হাজির হলে উভয়ের মধ্যে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হয়। তারই জের ধরে রাতে লতিফ ও তার চতুর্থ স্ত্রী আসমা পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারনা করছে।
এলাকাবাসী ও মৃতের ভাই আসলাম শেখ জানায়, প্রায়ই সময় স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়াবিবাদ লেগেই থাকতো। আব্দুল লতিফ ২মাস পূর্বে নারায়াণপুরের বারীর কন্যা আসমা (৩২) কে গোপনে বিয়ে করে। গত এক সপ্তাহ পূর্বে বিষয়টি জানাজানি হলে তৃতীয় স্ত্রী সাগরী বেগম স্বামী আবার বিয়ের করার বিষয়টি মেনে নিতে না পেরে স্বামীকে গালিগালাজ করতে থাকে।
এ নিয়ে শুক্রবার (২২ জানুয়ারি) বিকেলে স্বামী আব্দুল লতিফকে তার অনুমতি না নিয়ে বিয়ে করায় আদালতে মামলা করবে বলে হুমকি দেয় সাগরী বেগম।
বিষয়টি নিয়ে স্ত্রী সাগরী বেগম আর যেন বাড়াবাড়ি না করতে পারে সে জন্য চতুর্থ স্ত্রী আসমার সাথে পরিকল্পনা করে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে জানায় মৃত সাগরীর ভাই আসলাম শেখ।
মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছে দুর্গাপুর থানা পুলিশ।
দুর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হাশমত আলী জানান, পারিবারিক কলহের জের ধরে স্বামী লতিফ তার স্ত্রী ও মৃতের সতীন আসমা সাথে যোগসাজশ করে শ্বাসরুদ্ধ করে এই হত্যাকা- ঘটিয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় থানায় ইউডি মামলা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে তদন্তসাপেক্ষে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ