‘দুর্নীতি-ব্যর্থতা’র দায়ে চীনে এক বছরে ৬ লক্ষাধিক কর্মকর্তার সাজা

আপডেট: জানুয়ারি ২২, ২০২২, ১:০৯ অপরাহ্ণ

ছবি: সংগৃহীত

সোনার দেশ ডেস্ক:


দায়িত্বপালনে ব্যর্থতা ও দুর্নীতির দায়ে ২০২১ সালে ৬ লাখ ২৭ হাজার কর্মকর্তাকে শাস্তি দিয়েছে চীন। প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের শাসনামলে এর আগে কখনোই এক বছরে এত লোককে সাজা দিতে দেখা যায়নি দেশটিতে। শনিবার (২২ জানুয়ারি) নিক্কেই এশিয়ার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

কমিউনিস্ট পার্টি সেন্ট্রাল কমিশন ফর ডিসিপ্লিন ইন্সপেকশন অ্যান্ড ন্যাশনাল সুপারভাইজরি কমিশন প্রকাশিত তথ্য অনুসারে, গত বছর সাজাপ্রাপ্ত চীনা কর্মকর্তাদের মধ্যে বেশিরভাগই ক্ষমতাসীন দলের নিম্নসারির নেতাকর্মী।

সংখ্যাগরিষ্ঠ ৪ লাখ ১৪ হাজার কর্মকর্তা গ্রামে কৃষি বা কোনো প্রতিষ্ঠানে কাজ করতেন।
প্রাদেশিক নেতা ও মন্ত্রিসভা-পর্যায়ে সাজা পেয়েছেন ৩৬ জন।

যদিও এই সংখ্যা ২০২০ সালের তুলনায় কিছুটা বেশি, তবে জিনপিং শাসনামলের প্রাথমিক বছরগুলোর তুলনায় অনেক কম। ২০১২ সালে শি জিনপিং ক্ষমতাগ্রহণের পরপরই দলের অনেক উচ্চপদস্থ নেতা-কর্মকর্তা দুর্নীতি তদন্তের মুখে পড়েন।

করোনাভাইরাস মহামারির শুরু থেকেই ‘জিরো কোভিড’ নীতিতে কঠোর বিধিনিষেধ অনুসরণ করছে চীন। ২০২১ সালে অনেক কর্মকর্তাকে শাস্তি দেওয়ার ক্ষেত্রে এর বড় যোগসূত্র রয়েছে।

বিমানবন্দরে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার পরিপ্রেক্ষিতে নানজিয়াংয়ে ১৫ কর্মকর্তা সরকারের তোপের মুখে পড়েন। এদের মধ্যে সেখানকার ভাইস মেয়র, জেলা পর্যায়ের এক নেতা ও অন্তত দুজন জ্যেষ্ঠ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা রয়েছেন।

গুয়াংঝুতে ভাইস মেয়রসহ ২০ জনকে সাজা দেওয়া হয়েছে। অভিযোগ, করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ব্যর্থ হয়েছেন তারা।

শাস্তি মিলেছে দুর্ঘটনা ও অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা ইস্যুতেও। হুবেই প্রদেশের শিয়ানে একটি গ্যাস বিস্ফোরণের জেরে ৩৪ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়। ওই দুর্ঘটনায় ২৬ জন নিহত ও ১৩৮ জন আহত হয়েছিলেন।

এছাড়া, আঞ্চলিক ঋণদাতা বাওশাং ব্যাংকের পতনের জন্য সাজা পেয়েছেন অভ্যন্তরীণ মঙ্গোলিয়ার কর্মকর্তারা।
তথ্যসূত্র: জাগোনিউজ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ