দেনার দায়ে জর্জরিত আমেরিকা, শুধু ভারতই পাবে ২১৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার

আপডেট: মার্চ ১, ২০২১, ৮:৪৬ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


বিপাকে আমেরিকা। বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতি যে দেশের, সেই দেশই কিনা ভুগছে আর্থিক সংকটে! ভারত-ব্রাজিল-সহ বহু দেশের কাছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কোটি কোটি টাকা দেনা রয়েছে। শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। শুধু তাই নয়, যে চিনের সঙ্গে এতটা বিবাদ, তারাও আমেরিকার কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা পায়। সম্প্রতি এমনটাই জানিয়েছেন মার্কিন কংগ্রেসম্যান তথা ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ার সেনেটর অ্যালেক্স মুনি।
মুনির মতে, ২০২০ সালে আমেরিকার ঋণের বোঝা ছিল ২৩.৪ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার। যা আগামিদিনে বেড়ে দাঁড়াবে ২৯ ট্রিলিয়নে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি টাকা পাবে চিন এবং জাপান। যা নিয়ে আরও উদ্বেগে মুনি। তিনি বলেন, “আমাদের ঋণের বোঝা বেড়ে দাঁড়াতে চলেছে ২৯ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলারে। যা কিনা প্রত্যেক মার্কিন নাগরিকের ঋণের থেকেও বেশি। এই নিয়ে অনেক ভুল তথ্যও ছড়িয়েছে। আর যে দুটি দেশ আমাদের কাছে সবচেয়ে বেশি অর্থ পায়, সেই চিন এবং জাপান কিন্তু আমাদের তেমন বন্ধু নয়।” এরপরই মুনি জানান, চিন এবং জাপান ১ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার পায় আমেরিকার কাছে।
তবে এরপরই আরও অবাক করা তথ্য পেশ করেন মুনি। বলেন, ব্রাজিল, ভারতও তাঁদের কাছে টাকা পায়। তিনি বলেন, ”যারা আমাদের অর্থ ধার দিয়েছেন, তাদের প্রত্যেককে সেই টাকা ফেরত দিতে হবে। ব্রাজিল আমাদের ২৫৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার পায়। ভারত পায় ২১৬ বিলিয়ন মার্কিন। আর এই তালিকা দিন দিন বেড়েই চলছে।” আর এরপরই তিনি বাইডেন প্রশাসনকে ঋণের বোঝা মেটাতে উপযুক্ত পদক্ষেপের আরজিও জানান। সম্প্রতি ক্ষমতায় এসেই করোনা মোকাবিলায় ১.৯ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলারের বিশেষ আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছিলেন জো বাইডেন। আর সেই প্রসঙ্গেই এই বক্তব্য মুনির।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন