দেশভাগের দাঙ্গায় বিচ্ছেদ, স্বাধীনতার ৭৫ বছরে পুনর্মিলন ভারত-পাকিস্তানের দুই ভাইয়ের

আপডেট: আগস্ট ১৩, ২০২২, ৮:৩২ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


দেশভাগ আধুনিক ভারতের ইতিহাসে চাঁদের কলঙ্কের মতো, চিরস্থায়ী বেদনার দাগ! স্বাধীনতার ৭৫ বছর পরেও যা ভোলা সম্ভব নয়। নতুন করে মনে করালেন ওঁরা। স্বাধীনতার ৭৫ বছর পর দেখা হল দুই ভাইয়ের। ম্যাজিকের মতো অবিশ্বাস্য সেই দেখা! দেশভাগের দাঙ্গায় বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছিলেন সিকা খান ও সাদিক খান। সাদিক চলে যান পাকিস্তানে, সিকা থেকে ভারতে। বলিউডের স্ক্রিপ্টকে হার মানিয়ে সম্প্রতি দেখা হয়েছে ওদের। নেপথ্য এক তরুণ পাকিস্তানি ইউটিউবার।

দেশভাগের আগে পাঞ্জাবের ভাটি-ায় বাড়ি ছিল খান পরিবারের। কিন্তু আজ থেকে ৭৫ বছর আগে সব বদলে যায়। সাম্প্রদায়িক হিংসার মুখে পড়তে হয় পরিবারটিকে। খুন হন সিকা-সাদিকের বাবা ও বোন। সেই শোকে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন ওঁদের মা। তখন বড়ভাই সাদিকের বয়স ১০ বছর। কোনওমতে প্রাণ বাঁচিয়ে পাকিস্তানে চলে যায় সে। এদিকে ভারতের ঠিকানায় পড়ে থাকে ছয় মাসের সিকা। গ্রামবাসী ও আত্মীয়দের আশ্রয়ে বড় হয় সিকা।

এই নির্মম জীবন কাহিনি থমকাতে পারত এটুকুতেই। কিন্তু তা হয়নি। কারণ সেই ভয়ংকর ট্রাজেডির অর্ধ শতক পরেও দাদার খোঁজ ছাড়েনি ভাই। সম্প্রতি স্থানীয় এক চিকিৎসকের সহায়তায় পাকিস্তানের এক ইউটিউবারের সঙ্গে যোগাযোগ হয় সাকির। শেষ পর্যন্ত ইউটিউবার নাসির ধিঁলোই খুঁজে দেন দাদা সাদিককে৷

চলতি বছরের জানুয়ারি মাস সাক্ষী হয় সেই আশ্চর্য পুনর্মিলনের। ৭৫ বছর পর করতারপুর করিডরে দেখা হয় দুই ভাইয়ের। চোখের জলে ভাসেন ভারতীয় সাকি ও পাকিস্তানি সাদিক খান। এই বিষয়ে সিকা খান বলেন, “প্রথমবার দেখা হওয়ার পর কথা বলতে পারিনি। আমরা একে অপরকে জড়িয়ে অনেকক্ষণ ধরে কেঁদেছি কেবল। দুই রাষ্ট্রের শত্রুতার রাজনীতি নিয়ে আমাদের কিছু যায় আসে না।”

এদিকে পাকিস্তানের যে ইউটিউবারের সাহায্যে অসম্ভব সম্ভব হয়েছে, তিনি জানিয়েছেন, শুধু এই দুই ভাই নন, কমপক্ষে ৩০০ পরিবারের পুনর্মিলন করিয়েছেন তিনি ও তার টিম।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ