রাজশাহীতে দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচন II সান্টু, সামাদ ও শরিফের জয়

আপডেট: মে ২২, ২০২৪, ১২:১৫ পূর্বাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক:


ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে রাজশাহীর পুঠিয়া, দুর্গাপুর ও বাগমারা উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে জয় পেয়েছে আওয়ামী লীগের তিন নেতা। এর মধ্যে দুইজন জেলা কমিটির নেতা ও আরেকজন পৌর আওয়ামী লীগের নেতা।
মঙ্গলবার (২১ মে) রাতে নির্বাচনের সহকারি রিটার্নিং অফিসাররা এই ফলাফল ঘোষণা করেন। বেসরকারিভাবে তাদের বিজয়ী ঘোষণাও করা হয়।

পুঠিয়া উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সামাদ মোল্লা, বাগমারায় জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি জাকিরুল ইসলাম সান্টু ও দুর্গাপুরে পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শরিফুজ্জামান শরিফ উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। আবদুস সামাদ মোল্লা ও শরিফুজ্জামান শরিফ এবার উপজেলা চেয়ারম্যানে নতুন মুখ। এর আগে জাকিরুল ইসলাম সান্টু বাগমারা উপজেলা চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। পঞ্চম উপজেলা নির্বাচনে তিনি দলীয় মনোনয়ন পাননি। ষষ্ঠ নির্বাচনে আবারও বিজয়ী হলেন।

সহকারি রিটার্নিং অফিসারদের ঘোষিত বেসরকারি ফলাফল অনুযায়ী, বাগমারা উপজেলায় ঘোড়া প্রতীক নিয়ে জাকিরুল ইসলাম সান্টু ৪৭ হাজার ৩২২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আনারস প্রতীক নিয়ে আবদুর রাজ্জাক সরকার ওরফে আর্ট বাবু পেয়েছেন ৪ হাজার ৩২১ ভোট। আর্ট বাবু উপজেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক। মোটরসাইকেল প্রতীকের নাসিমা আকতার ২২৬৪ ভোট পেয়েছেন। তিনি চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছিলেন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার কর্তৃক স্বাক্ষরিত ফলাফলে এ তথ্য জানা যায়।

উপজেলা নারী ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে কলস প্রতীকে কহিনুর বেগম ৪২ হাজার ৬৮০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মমতাজ আক্তার বেবি প্রজাপতি প্রতীকে ৫ হাজার ৬০২ ভোট এবং ফুলবল প্রতীকের শাহিনুর খাতুন ৪ হাজার ৭০৩ ভোট পেয়েছেন। এই নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম শহিদের কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আগেই নির্বাচিত হন।

পুঠিয়া উপজেলায় বিজয়ী প্রার্থী আবদুস সামাদ মোল্লা আনারস প্রতীক পেয়েছেন ২৬ হাজার ৬৬৫ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আহসানুল হক মাসুদ ঘোড়া প্রতীকে পেয়েছেন ২৩ হাজার ৬৭৯ ভোট। উপজেলা চেয়ারম্যান জিএম হিরা বাচ্চু মোটরসাইকেল প্রতীকে পেয়েছেন ৯ হাজার ৮৭২ ভোট।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিন প্রার্থীর লড়াইয়ে বর্তমান উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল মতিন মুকুল চশমা প্রতীকে পেয়েছেন ২৮ হাজার ১৭৬ ভোট নির্বাচিত হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী ফজলে রাব্বি মুরাদ টিউবওয়েল প্রতীকে পেয়েছেন ১৯ হাজার ১৯৩ ভোট। আরেক প্রার্থী জামাল উদ্দিন তালা প্রতীকে পেয়েছেন ১০ হাজার ৯৫৫ ভোট ।

নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে আবারও নির্বাচিত হয়েছেন মৌসুমী আক্তার। তিনি বৈদ্যুতিক পাখা প্রতীকে পেয়েছেন ২৬ হাজার ৯৮০ ভোট। তার প্রতিদ্বন্দ্বী ফুটবল প্রতীকে পরিজান বেগম পেয়েছেন ২১ হাজার ৮৯২ ভোট। আরেক প্রার্থী হাস প্রতীকে শবনাজ আক্তার পেয়েছেন ৮ হাজার ৫৯৬ পেয়েছেন ভোট।

দুর্গাপুরে শরিফুজ্জামান শরিফ মোটরসাইকেল প্রতীকে ভোট পেয়েছেন ৪২ হাজার ১১৩ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল মজিদ সরদার ঘোড়া প্রতিকে পেয়েছেন ২৭ হাজার ৩৭২ ভোট। মঙ্গলবার (২১ মে) রাতে ভোট গণনার পর এ ফলাফল ঘোষণা করেছেন নির্বাচনের সহকারি রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্বীকৃতি প্রামানিক।

উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে কাদের মণ্ডল টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে ৩৪ হাজার ৮২৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী শামীম ফিরোজ তালা নিয়ে পেয়েছেন ৩০ হাজার ৩৫১ ভোট। এছাড়াও টিয়া প্রতীক নিয়ে মোসাব্বের সরকার জিন্নাহ পেয়েছেন ১ হাজার ৮৩ ভোট।

নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ফুটবল প্রতীক নিয়ে ৩৩ হাজার ৮৬৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন বানেছা বেগম । তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কোহিনূর বেগম কলস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩৩ হাজার ৩০৬ ভোট।

রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও রিটার্নিং অফিসার কল্যাণ চৌধুরী জানান, দ্বিতীয় ধাপে ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বাগমারায় জাকিরুল ইসলাম সান্টু, দুর্গাপুরে শরিফুজ্জামান শরিফ ও পুঠিয়ায় আবদুস সামাদ মোল্লা নির্বাচিত হয়েছেন। তাদের বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, রাজশাহীর তিন উপজেলায় সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করতে দেড় হাজার পুলিশ, ১০ প্লাটুন বিজিবি, ৩ হাজার ৭৪০ জন আনসার সদস্য, ৩৩ জন ভ্রাম্যমাণ ম্যাজিস্ট্রেট, র‌্যাবের ৬টি টিম দায়িত্ব পালন করেছে। এর মধ্যে দুয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনাও ছিল। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আনে।

তিনটি উপজেলায় মোট ভোটার ৬ লাখ ৫২ হাজার ৯০৮ জন। মোট ভোট কেন্দ্র ছিল ২৬৭টি। এর মধ্যে বাগমারা উপজেলায় ১২২টি, পুঠিয়ায় ৭৮ ও দুর্গাপুরে ৬৭টি ভোট কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হয়েছে। (প্রতিবেদন তৈরিতে সহায়তা করেছেন বাগমারা, দুর্গাপুর ও পুঠিয়া প্রতিনিধি।)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Exit mobile version