ধান-চালের অবৈধ মজুতের বিরুদ্ধে অভিযান কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে

আপডেট: জুন ২, ২০২২, ৮:২৮ পূর্বাহ্ণ

ভরা মৌসুমে চালের দাম বৃদ্ধির বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর অবস্থানের কারণে পরিস্থিতি পাল্টাতে শুরু করেছে। তবে ধানের দাম নিম্নমুখি হলেও চালের দামে এখনো কোনো প্রভাব পড়েনি। তবে খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, সরকারের অভিযান অব্যাহত থাকলে চালের দামও কমতে থাকবে।
ধান ও চালের অবৈধ মজুতের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার থেকে মাঠে নেমেছে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের ৮টি টিম। একইসঙ্গে খাদ্য মন্ত্রণালয়ে একটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। অবৈধ মজুতের তথ্য জানাতে কন্ট্রোল রুমের প্রকাশ করা ফোন নম্বরে যোগাযোগ করার অনুরোধ জানান হয়েছে। মঙ্গলবার খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের সভাপতিত্বে সচিবালয়ে তার নিজ দফতরে অনুষ্ঠিত এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
সংবাদ মাধ্যমের তথ্যে জানা গেছে, ধান-চালের অবৈধ মজুত ঠেকাতে মঙ্গলবার থেকেই মাঠে নেমেছে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের ৮টি টিম। কেউ অবৈধ মজুত করে কৃত্রিম সংকট তৈরি করছে কিনা, এসব টিমের সদস্যরা তা খতিয়ে দেখবে এবং অবৈধ মজুতদারদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে কাজ করবে। অবৈধ মজুতদারি প্রতিরোধে জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের (ইউএনও) আধা-সরকারি চিঠি পাঠানো এবং এনএসআই, র‌্যাব ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরকেও এ বিষয়ে চিঠি দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।
ইতোমধ্যেই রাজধানী ঢাকাসহ দেশব্যাপি ধান-চালের অবৈধ মজুত ঠেকাতে অভিযান শুরু হয়েছে এবং এই অভিযানের শুরুতেই কিছু সাফল্যও পাওয়া গেছে। দু’একটি স্থানে অভিযান টিম পৌঁছলে ব্যবসায়ীদের গুদাম ফেলে পালিয়ে যাওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। এসব কিছু এটাই প্রমাণ করে যে, স্বার্থন্বেষী ব্যবসায়ীরা সময় ও সুযোগ কাজে লাগিয়ে কৃত্রিম উপায়ে বাজারকে প্রভাবিত করে। যা দ্রব্যমূল্যের বাজারে অস্থিরতার সৃষ্টি করা হয়। এবং অধিক মুনাফা লুটে নেয়া হয়। এই পরিস্থিতি রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য করা হয়ে থাকে। এ ক্ষেত্রে তেমনটি হওয়া ব্যতিক্রম কিছু নয়। তাই যদি না হবে ধান উৎপাদনের ভরা মৌসুমে হঠাৎ করেই ধান-চালের দাম বাড়বেই বা কেন? এর আগে সয়াবিন তেল নিয়ে তেলেসমাতি লক্ষ্য করা গেছে। সে ক্ষেত্রে সরকারের কঠোর অবস্থানের কারণেই কুচক্রিরা পিছু হঠতে বাধ্য হয়। তবে মূল্য বৃদ্ধির কারণে ব্যবসায়ীদের বক্তব্যের অসাড়তা এটাই প্রমাণ করে যে, তারা সিন্ডিকেশন করেই বাজারকে প্রভাবিত করে, বাজার নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা চালায়।
সরকারের কঠোর অবস্থান ও পদক্ষেপের কারণে মুনাফাখোর ব্যবসায়ীরা পিছু হঠতে শুরু করেছে। কিন্তু পদক্ষেপের ব্যাপারে শিথিলতা দেখানোর কোনোই সুযোগ থাকা বাঞ্ছনীয় হবে না। যারা মানুষের দুর্ভোগ বাড়িয়েই লুটপাট করতে চায় তাদের জন্য কঠোর ব্যবস্থাই প্রয়োজন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ