নওগাঁয় ইফতার নিয়ে খেটে-খাওয়া মানুষের পাশে পুলিশ সুপার

আপডেট: এপ্রিল ২০, ২০২১, ৯:০৬ অপরাহ্ণ

নওগাঁ প্রতিনিধি:


সারা দেশে চলছে দফায় দফায় সর্বাত্মক লকডাউন। এই লকডাউনে কর্ম হারিয়ে পথে বসেছে শহরের অনেক ভবঘুরে ও খেটে-খাওয়া দিনমজুররা। এরমধ্যে আবার চলছে রমজান মাস। অনেকের ঘরে দিনশেষে ইফতার নেবার মতো জো নেই। এই সব মানুষদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে জেলা পুলিশ। প্রতিদিন তিনশো রোজাদার মেহমানকে সাথে নিয়ে ইফতার করে দৃষ্টান্তর স্থাপন করেছে নওগাঁ জেলা পুলিশ।
পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আবদুল মান্নান মিয়া এমন মহৎ উদ্যোগ করেছেন। পহেলা রোজা থেকেই চলছে এমন মেহমানদারি ইফতার। এবার পহেলা রোজা থেকেই সর্বাত্মক লকডাউন। এ কারণে প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ মোড়, প্রবেশ দ্বার ও সড়কে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। চেকপোস্টগুলোতে ২৪ ঘণ্টা থাকছে পুলিশ মোতায়েন। ওইসব পুলিশ সদস্যদেরকে নাওয়া-খাওয়া সবই করতে হচ্ছে চেক পোস্টেই।
রোজাদার পুলিশ সদস্যরা স্বজনদের ছেড়ে রাস্তায় বসে ইফতার সারছেন। পুলিশ সুপার আব্দুল মান্নান মিয়া প্রতিদিনই কোনো না কোনো চেকপোস্টে সাধারন মানুষের কাতারে বসে ইফতার করছেন। একই সাথে মেহমানদারিও করছেন। পণ্যবাহী গাড়িচালক, পথচারী, ছিন্নমূল মানুষকে সাথে নিয়ে ইফতার করছেন তারা। পুলিশের এই ভালবাসা ও প্রাণবন্ত মেহমানদারি ইফতার সাধারণ মানুষকে আন্দোলিত করে তুলেছে।
চেক পোস্টে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা জানান, এসপি আবদুল মান্নান মিয়ার তদারকিতে প্রতিদিন পুলিশ লাইন্স ও বিভিন্ন থানায় ইফতারি তৈরি হয়। কর্তব্যরত পুলিশ সদস্যদের সাথে মেহমানদারির জন্য তৈরি করা হয় আরো ৩০০ জনের অতিরিক্ত ইফতারি। ইফতারিতে প্রতিদিন আলাদা আয়োজন থাকে। তবে খেজুর, ছোলা বুট, মুড়ি, বেগুনি, কলা, পিয়াজু, মিনানেল পানি ও মাঠা রাখা হয়। রাস্তায় সাধারণ মানুষের সাথে ইফতার করতে পেরে খুশি; বলছেন তারা।
পুলিশ সদস্য নাজমূল হোসেন বলেন প্রতিদিনই অপরিচিত কিছু রোজাদার মেহমানের সাথে ইফতার করছি। কেই কাউকে চিনি না অথচ একসাথে ইফতার করছি। খুব ভাল লাগছে।
নওগাঁ সদর মডেল থানার ওসি নজরুল ইসলাম জুয়েল বলেন, এসপি স্যারের মহৎ উদ্যোগে সাধারণ মানুষ ও পুলিশ সদস্য একে অপরের মধ্যে মিলবন্ধন তৈরি হচ্ছে।
পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আবদুল মান্নান মিয়া বলেন, পুলিশ সবসময় রাষ্ট্রের মহান দায়িত্ব পালনের মধ্যদিয়ে মানুষের জন্য কাজ করে আসছে। করোনা মহামারির প্রথম ধাপে যে ভাবে মানবিক পুলিশ কাজ করেছে, দ্বিতীয় ঢেউয়ে আরো বেশি সচেষ্ট। সর্বাত্মক লকডাউন কার্যকর, মানুষের জানমালের নিরাপত্তা দিতে সদা তৎপর পুলিশের প্রতিটি সদস্য।
তিনি আরো বলেন রাস্তায় অনেক রোজাদারকেই ইফতার করতে দেখা যায়। সেই সব সাধারণ মানুষ ও খেটে-খাওয়া মানুষদের কথা চিন্তা করে প্রতিদিন জেলা পুলিশের সক্ষমতা থেকে ৩০০ জনের মেহমানদারির আয়োজন করছি। পুলিশ সদস্যরা রাস্তায় দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি ইফতারের সময় মেহমানদারি করছেন। মাহে রমজানের পুরো মাস জুড়েই এই মেহমানদারি চলবে জানান এসপি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ