নওগাঁয় চাচার বিরুদ্ধে ভাতিজা বউকে ধর্ষণের অভিযোগ গ্রাম্য সালিশে গাছে ঝুলিয়ে মেরে ধর্ষকের পা ভেঙ্গে দিলেন মেম্বার

আপডেট: অক্টোবর ১৯, ২০২১, ১:০২ অপরাহ্ণ


আব্দুর রউফ রিপন, নওগাঁ প্রতিনিধি:


নওগাঁর বদলগাছীতে ভাতিজা বউকে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে প্রতিবেশী এক চাচা আব্দুল লতিফের বিরুদ্ধে। রোববার রাতে এই ঘটনা ঘটেছে। অপরদিকে সোমবার গ্রাম্য সালিশের নামে স্থানীয় ইউপি সদস্য সাধনচন্দ্র ধর্ষক লতিফকে গাছে ঝুলিয়ে পিটিয়ে তার পা ভেঙ্গে দিয়েছে এবং বউকেও মারপিট করেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মিঠাপুর ইউনিয়নের উজালপুর গ্রামের ছহিম উদ্দীনের ছেলে আব্দুল লতিফ (৫০) একই গ্রামের পাশের বাড়ির ভাতিজার স্ত্রীর সাথে অবৈধ কাজে লিপ্ত হলে প্রতিবেশীরা তাদের আটক করে। সোমবার গ্রাম সালিশ বসিয়ে মিঠাপুর ইউপি সদস্য সাধন চন্দ্র ও দেলোয়ার হোসেন, মাতব্বর এসকেন সোনার আব্দুল লতিফকে গাছের সাথে বেঁধে বেধড়ক মারপিট ও নির্যাতন করে। এসময় আব্দুল লতিবের ডান পা ভেঙ্গে যায় এবং মিঠাপুর ইউপির মহিলা গ্রাম পুলিশ ইউপি সদস্যদের হুকুমে

আমিনাকে নির্যাতন করে মারপিট করে এবং বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার হুকুম দেন।
স্থানীয়রা বলেন, লতিফ দীর্ঘদিন ধরে ঢাকাতে রাজমিস্ত্রির কাজ করেন। মাঝে মধ্যে বাড়িতে আসে। তিনি অন্যায় করেছে ঠিক কিন্তু এভাবে রশি দিয়ে বেঁধে গাছে ঝুলিয়ে পা ভেঙ্গে দেওয়া এবং মারপিট করা ঠিক হয়নি। অপরদিকে নির্যাতনের সময় আমিনার ছোট ২টি বাচ্চাকে সেখান থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়।

এব্যপারে ইউপি সদস্য সাধন চন্দ্র বলেন গ্রাম্য সালিশের সিদ্ধান্তে তাদেরকে শাসন করা হয়েছে।
সত্যতা নিশ্চিত করে বদলগাছী থানার ওসি (তদন্ত) রায়হান হোসেন বলেন, খবর পেয়ে আব্দুল লতিফকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং আমিনা খাতুনকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। এই বিষয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।