নওগাঁয় পিটিয়ে হত্যামামলার আসামিরা প্রকাশে ঘুরছে!

আপডেট: আগস্ট ২৮, ২০১৭, ১২:৫৮ পূর্বাহ্ণ

বদলগাছী প্রতিনিধি


নওগাঁর বদলগাছীতে চোর সন্দেহে হেলাল উদ্দিন (৩৫) নামে এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা ঘটনার এক সপ্তা পার হলেও আসামিদের গ্রেফতার না করা অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। আসামিরা প্রকাশ্যে ঘোরাফেরা করলেও তাদের গ্রেফতার না করায় ন্যায় বিচার না পাওয়ার আশঙ্কা করছে নিহতদের পরিবার। এদিকে নিহতের পরিবারকে বিভিন্ন ভাবে মামলা তুলে নেয়ার হুমকি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আসামিরা পলাতক থাকায় তাদের গ্রেফতার করা সম্ভব হচ্ছে না বলে পুলিশ দাবি করেছে।
গত ২১ আগস্ট সোমবার তার নিহত হেলাল উদ্দিনের ভাই বেলাল হোসেন বাদী হয়ে সদর ইউপি চেয়রম্যান আবদুুস সালাম মন্ডল ও নাম উল্লেখ করে ৮ জন এবং অজ্ঞাতনামা আরো ৭-৮ জনকে আসামি করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
মামলার বাদী বেলাল হোসেন অভিযোগ করে বলেন, আসামিরা প্রভাবশালী হওয়ায় তারা প্রকাশ্য ঘোরাফেরা করলেও থানা পুলিশ তাদের গ্রেফতার করছে না। অন্যদিকে মামলা তুলে নিতে বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিচ্ছে আসামি পক্ষের লোকজন। এতে ন্যায় বিচার পাওয়ার আশঙ্কা দিয়েছে।
বদলগাছী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জালাল উদ্দিন জানান, মামলার আসামিরা বাদিকে হুমকি দিচ্ছে এ বিষয়টি জানা নেই। ওসি আরো জানান, আসামিরা পলাতক থাকায় তাদের গ্রেফতার করা সম্ভব হচ্ছে না। তাদের গ্রেফতারের জন্যে পুলিশের একাধিক টিম কাজ করছে।
জেলা পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন জানান, এ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের কোন ছাড় দেয়া হবে না। বিষয়টি দ্রুত ক্ষতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
উল্লেখ্য, ১৯ আগস্ট শনিবার দিবাগত রাতে উপজেলার সাতগাছী গ্রামের একটি গভীর নলকুপের ট্রান্সফরমার চুরি হয়। পরদিন  রোববার হেলাল হোসেনকে চোর সন্দেহে নলকুপের অপারেটর ও সাবেক মেম্বার গোলাম মর্তুজা রেজা চৌধুরী আটক করে উত্তমধ্যম দিয়ে বদলগাছী সদর ইউনিয়ন পরিষদে পাঠিয়ে দেয়। পরিষদের হল রুমে আটকে রেখে মামলার আসামিরাসহ কয়েকজন লোক হেলালকে নির্মম ভাবে মারপিট করে। এতে হেলাল গুরুত্বর অসুস্থ্য হয়ে পড়লে মুমূর্ষ অবস্থায় পরিষদের গ্রাম পুলিশ দেলোয়ার হোসেনের মাধ্যমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়। হাসপাতালের জরুরী বিভাগে চিকিৎসা চলাকালীন সময়ে মাত্র ১৫ মিনিটের মধ্যে রাত সোয়া ৮ টায় তার মৃত্যু হয়।