নওগাঁয় পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন ।। বসতবাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ

আপডেট: জুন ১৪, ২০১৭, ১:৩২ পূর্বাহ্ণ

নওগাঁ প্রতিনিধি


নওগাঁ পৌর মেয়র নজমুল হক সনির বিরুদ্ধে বসতবাড়ি ভাঙচুরের ও উচ্ছেদ করার অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী একটি পরিবার। গতকাল মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় জেলা প্রেসক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলন করেন নওগাঁর নামাজগড় পাড়ার বাসিন্দা মুনজুর হোসেন।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি লিখিত বক্তব্যে বলেন, তিনি একজন পেশায় দর্জি কারিগর। তার পার্শবর্তী মো. মোক্তার হোসেন পিতা সোলাইমান আলী। তারা মুনজুরের বসত সীমানায় অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ করেন। এমতাবস্থায় মুনজুর তার বসত মৌজা পার নওগাঁ খতিয়ান ৩১৬ মোতাবেক সীমানা বের করে দেয়ার জন্য এবছর এপ্রিল মাসের চার তারিখে নওগাঁ পৌরসভায় পৌর বিধি লংঘনের অভিযোগ দায়ের করেন।
পৌরসভা অভিযোগ গ্রহণ করে মুনজুরকে সীমানা নির্ধারণ করার জন্য জমি জরিপ করার পরামর্শ দেয়। সে অনুযায়ী এপিল মাসের ২৪ তারিখে জমি সার্ভে করার আবেদন করেন তিনি। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এবছর জুন মাসের ১১ তারিখে জমি মাপ করার জন্য তারিখ নির্ধারণ করে পৌর কর্তৃপক্ষ। কিন্ত গত ৭ জুন তারিখে ওয়ার্ড কমিশনার আযাদ হোসেন, এলাকার নেত্রি রিনা খান, সাইফুল বাবা মৃত সাত্তার মোল্লা এবং তিন নম্বর ওয়ার্ড কমিশনার নাজমুল হক মুন্টুর নেতৃত্বে সম্পূর্ণ অবৈধভাবে তার একতলা বসতঘর ভেঙে গুড়িয়ে দেয়। সেই সঙ্গে তার বসতঘরের বিদ্যুত সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়। ঘটনার সময় মুনজুর রহমান জমি জরিপ করার জন্য পৌর মেয়র নজমুল হক সনির কক্ষে অবস্থান করছিলেন বলে দাবি করেন তিনি। তার অনুপস্থিতিতে পরিবারকে ঘর থেকে জোরপূর্বক বের করে দিয়ে এ ভাঙচুর চালায় পৌরসভার লোকজন। ঘটনাটি ফোনে মুনজুর জানতে পেরে পৌর মেয়র নজমুল হক সনিকে জানান। কিন্ত তিনি রহস্যজনক কারণে কোন প্রতিকার না করে তার সীমানা লংঘনকারী মোক্তার হোসেনের পক্ষে কথা বলেন।
মুনজুর হোসেন আরো অভিযোগ করেন, তার প্রতিবেশী মোক্তার হোসেন ও তার বাবা সোলাইমানকে তার বসতঘর দখলে দেয়ার জন্য এ অপতৎপরতা চালায় পৌর কর্তৃপক্ষ। সীমানা লংঘনকারী মোক্তার হোসেন একজন কুয়েত প্রবাসী। তার প্রভাব ও অর্থপত্তির কাছে পৌরসভা প্রভাবিত হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। বর্তমানে মুনজুর হোসেন খোলা আকাশের নিচে স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। তিনি পৌরসভার এমন বিচার নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে পৌর মেয়র নজমুল হক সনি বলেন, যা হয়েছে সবকিছু বিধি মতোই হয়েছে।