নওগাঁয় ‘হৃদয়ে সতীহাট’ সংগঠনের বিনামূল্যে ১০হাজার মাস্ক বিতরণ

আপডেট: July 29, 2020, 2:06 pm

আব্দুর রউফ রিপন, নওগাঁ প্রতিনিধি:


সারা বিশ্ব বর্তমানে মহামারি করোনা ভাইরাসের জালে আবদ্ধ। এই ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকার লক্ষ্যে ইতিমধ্যেই সরকার মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করেছেন। কিন্তু অনেক মানুষই করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না এবং ব্যবহার করছেন না মাস্ক। তাই এই সব মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে ও মাস্ক ব্যবহারে উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে নওগাঁর মান্দা উপজেলার সতীহাটে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের মাঝে বিনামূল্যে ১০হাজার মাস্ক বিতরণ ও জীবাণুনাশক স্প্রে করা হয়েছে।
স্বেচ্ছাসেবী ও অরাজনৈতিক সংগঠন “হৃদয়ে সতীহাট” এর আয়োজনে বুধবার দিনব্যাপী ঐতিহ্যবাহি সতীহাটের ৫টি প্রবেশ মুখে সংগঠনের শতাধিক সদস্য নিজ উদ্যোগে এসব মাস্ক বিতরণ এবং জীবাণু নাশক স্প্রে কার্যক্রম পরিচালনা করেন। এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ৫টি কেন্দ্রের উদ্বোধন করেন নওগাঁর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো: রকিবুল আক্তার। সংগঠনের সভাপতি আকরাম হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মান্দা থানার অফিসার ইনচার্জ (ভারপ্রাপ্ত) তারেকুর রহমান সরকার।
এছাড়াও সংগঠনের উপদেষ্টা ও মুখপাত্র কাজী কামাল হোসেনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গনেশপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি আলহাজ্ব হানিফ উদ্দিন মন্ডল, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব সোহেল রানা, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ফারুক হোসেন মোল্লা, ইউপি সদস্য আলেফ উদ্দিন মৃধাসহ সংগঠনের নির্বাহী কমিটির সদস্যবৃন্দ।
সংগঠনের মুখপাত্র কাজী কামাল হোসেন সারাদেশে করোনা মহামারি থেকে সমাজ এবং দেশকে রক্ষার জন্য সকলকে মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, এলাকার মানুষের মাঝে সচেতনতা গড়ে তোলার লক্ষ্যে সতীহাটে আগত প্রায় ১০হাজার মানুষের মাঝে বিনামূল্যে মাস্ক বিতরণ ও জীবাণু নাশক স্প্রে করা হয়েছে। একাজে সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার পাশাপাশি সরকারের কাছে বিনা মূল্যে মাস্ক সরবরাহের আহ্বান জানান তিনি।
নওগাঁর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. রকিবুল আক্তার বলেন, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “হৃদয়ে সতীহাট” করোনা প্রতিরোধে বিনামূল্যে মাস্ক ও জীবাণুনাশক স্প্রে করার যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে, তা সত্যিই প্রশংসনীয়। এই ধরনের কার্যক্রম সারা দেমের মানুষের কাছে একটি মডেল হতে পারে। আমরা যদি আমাদের আশেপাশে এই ধরনের কার্যক্রম অব্যাহত রাখি তাহলে অনেক মানুষই করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের স্বাস্থ্যবিধি ও মাস্ক ব্যবহারে আগ্রহী উঠবেন। এতে করে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতা যেমন বৃদ্ধি পাবে তেমনি ভাবে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যাও কমবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ