নগরীতে কলেজছাত্র খুনের ঘটনায় গ্রেফতার এক

আপডেট: নভেম্বর ১৫, ২০১৯, ১২:৫৭ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


নগরীতে ছুরিকাঘাতে কলেজছাত্র ফাহিম হোসেনের (১৮) নিহত হওয়ার ঘটনায় রাকিব হাসান আবির (১৯) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত বুধবার রাতে অভিযান চালিয়ে নগরের ভাটাপাড়া কালিরখা মোড় এলাকায় নিজ বাড়ি থেকে রাকিবকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারের পর তাকে রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। এর আগে বুধবার রাতে নিহত ফাহিমের বাবা গোলাম হোসেন বাদি হয়ে দুইজনকে আসামি করে শাহ মখদুম থানায় মামলা দায়ের করেন।
শাহ মখদুম থানার ওসি মাসুদ পারভেজ বলেন, ফাহিম খুনের ঘটনায় দুইজনকে আসামি করে তার বাবা হত্যা মামলা দায়ের করেন। আসামিরা হলো, রাকিব হাসান আবির (১৯) ও আযমির হাসান (২০)। তারা দুইজনই বখাটে। আসামিদের মধ্যে বুধবার রাতে অভিযান চালিয়ে নিজ বাড়ি থেকে রাকিবকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার বাড়ি নগরের ভাটাপাড়া কালিরখা মোড় এলাকায়। একই এলাকার আযমির হাসানকে গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে। আযমির এই ছুরিকাঘাত করে বলে জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।
মাসুদ পারভেজ বলেন, গত বুধবার বিকেলে নগরীর পবা নতুনপাড়ায় অবস্থিত রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের পেছনে দুই তরুণ ও দুই তরুণী বসে গল্প করছিলেন। তখন ফাহিম এবং তার দুই বন্ধু যুবরাজ ও সৈকত তাদের বলেন, এখানে বসে গল্প করা যাবে না। এ নিয়ে কথাকাটাকাটি শুরু হলে একপর্যায়ে তরুণীদের সঙ্গে বসে থাকা আযমির ছুরি বের করে ফাহিম ও যুবরাজকে আঘাত করেন। এ সময় প্রাণভয়ে সৈকত পালিয়ে যান। পরে স্থানীয় লোকজন ফাহিম ও যুবরাজকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সন্ধ্যায় ফাহিম মারা যান।
রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক সাইফুল ফেরদৌস বলেন, সন্ধ্যার আগে ফাহিম ও যুবরাজকে হাসপাতালে আনা হয়। ফাহিমের বুকের বাঁ পাশে ছুরির আঘাতের চিহ্ন ছিল। যুবরাজের বুকের ডান পাশে আঘাত রয়েছে। ফাহিম রাত ৮টার দিকে মারা যায়। তবে যুবরাজ শঙ্কামুক্ত।
নগর পুলিশের (আরএমপি) মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, এক এলাকা থেকে আরেক এলাকায় বান্ধবীদের নিয়ে গিয়ে বসে গল্প করার জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে। ইতোমধ্যেই একজন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মূল আসামিকে ধরতেও পুলিশ চেষ্টা চালাচ্ছে। দ্রুত তাকেও আইনের আওতায় আনা হবে বলেন এই পুলিশ কর্মকর্তা।