নগরীতে কলেজ ছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

আপডেট: অক্টোবর ২০, ২০১৬, ১১:৫৩ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
রাজশাহী নগরীর একটি ছাত্রীনিবাস থেকে মাহাবুবা ইসলাম মুন্নি (১৭) নামের এক কলেজ ছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটে বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে। মুন্নি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ সদর এলাকার মনিরুল ইসলামের মেয়ে। বৃহস্পতিবার নগরীর বর্ণালীর মোড় এলাকায় সালমা খাঁন ছাত্রী নিবাসের ৬ তলায় ৬০৭ নম্বর কক্ষ থেকে ওই ছাত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়।
জানা গেছে, মাহাবুবা ইসলাম মুন্নি রাজশাহী মসজিদ মিশন স্কুল এন্ড কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী ছিলেন। প্রেম ঘটিত কারণে তিনি আত্মহত্যা করতে পারেন বলে ধারণা করছেন তার সহপাঠিরা। শিবগঞ্জের একটি ছেলের সঙ্গে মুন্নির প্রেমের সম্পর্ক ছিল।
ওই ছাত্রীনিবাসের মালিক আনোয়ার হোসেন জানান, রাত নয়টার দিকে ছাত্রীনিবাসের ছাত্রীদের নিকট থেকে তিনি জানতে পারেন একজন ছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। এরপর পুলিশকে খবর দেন তিনি। খবর পেয়ে নগরীর বোয়ালিয়া থানা পুলিশ গিয়ে মুন্নির রাশ উদ্ধারের ব্যবস্থা করে।
বোয়ালিয়া থানার এস আই আজিজুল ইসলাম জানান, ছাত্রীটি গলায় ওড়না পেঁচিয়ে তার কক্ষের ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আত্মহত্যা করেছে। পরে জানালা দিয়ে তার একজন বান্ধবি বিষয়টি প্রথমে টের পান। এরপর মুন্নি আত্মহত্যার বিষয়টি জানাজানি হয়। পরে ঘরের দরজা ভেঙে লাশ উদ্ধারের ব্যবস্থা করা হয়।
ওই ছাত্রীর বান্ধবি হাবিবা খাতুন বলেন, মুন্নির শরীর একটু খারাপ ছিল। তাই তাকে হাবিবার কক্ষেই থাকতে বলে তিনি বাজারে যান বই কিনতে। তবে রাত আটটার পরে বাজার থেকে ফিরে হাবিবা ফিরে এসে মুন্নিকে তার কক্ষে দেখতে পাননি।
হাবিবা আরও জানান, তিনি চার তলার একটি কক্ষে থাকেন। সেখান থেকে রাত নয়টার দিকে মুন্নিকে খুঁজতে তার কক্ষে যান হাবিবা।  কিন্তু ভিতর থেকে দরজা বন্ধ দেখতে পাওয়া যায়। পরে জানালার গ্লাস সরিয়ে মুন্নিকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে হাবিবা চিৎকার দিতে শুরু করেন। এরপর মুন্নির আত্মহত্যার বিষয়টি জানাজানি হয়।
মুুন্নির সহপাঠিরা আরও জানান, মুন্নির সঙ্গে শিবগঞ্জের একজন ছেলের প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। এই সম্পর্কের জের ধরে মাঝে-মধ্যে দুজনের মধ্যে কথাকাটাকাটি হতো। এ কারণেই মুন্নি আত্মহত্যা করতে পারে বলেও দাবি করেন তার সহপাঠিরা।
ওই ছাত্রীনিবাসের কেয়ারটেকার আনোয়ারা বেগম জানান, প্রায় ৪ মাস আগে ছাত্রীনিবাসের ছয় তলার ৬-৭ নম্বর কক্ষটি ভাড়া নেন মুন্নি। এরপর থেকে তিনি এক সিটের ওই কক্ষটিতে একাই থাকতেন।