নগরীতে কিশোর গ্যাঙ ও মাদকের বিরুদ্ধে সচেতনতা বৃদ্ধির আহ্বান

আপডেট: মে ২৬, ২০২৪, ৯:৩০ অপরাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক:


নগরীতে কিশোর গ্যাঙ, সাইবার ক্রাইম, উত্ত্যক্তকরণ, বাল্যবিবাহ ও মাদকসেবন বিরোধী সচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার (২৬ মে) বিকেলে নগরীর পুলিশ ফাঁড়ি এলাকায় মাদকবিরোধী সচেতনতামূলক সভায় মূখ্য আলোচক ছিলেন, রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ’র অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস) সাবিনা ইয়াসমিন।

এসময় অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, একটা অসংগঠিত সমাজ ব্যবস্থায় নেতিবাচক ফল হলো কিশোর অপরাধ। পারিবারিক কাঠামোর দ্রুত পরিবর্তন, অপসংস্কৃতি ও হতাশা কিশোর অপরাধ বৃদ্ধির প্রধান কারণ। তারা এলাকায় আধিপত্য বিস্তারে মাঝে মধ্যেই প্রতিপক্ষের সঙ্গে মারামারি করে। এছাড়াও তারা ইভটিজিং, চুরি, চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অপরাধে জড়িয়ে পরে। তাই যেখানেই কিশোর গ্যাঙ দেখা যাবে, দ্রুত পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতে হবে। পাশাপাশি কিশোর গ্যাঙ, সাইবার ক্রাইম ও মাদকের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের সচেতনতা বৃদ্ধির আহ্বান জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, কিশোর গ্যাং প্রতিরোধে প্রথমে পরিবারকেই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে। উঠতি বয়সী শিশু-কিশোরদের প্রতি পরিবারের স্নেহ মমতা, ভালবাসা ও যত্ন বাড়াতে হবে পিতা-মাতাকে অবশ্যই সন্তানদের যথেষ্ট সময় দিতে হবে। পরিবারের সবার মনে রাখতে হবে কিশোর গ্যাঙ, মাদক, ইভটিজিং একটি পরিবার, সমাজ তথা পুরো দেশকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যায়। সভায় ইভটিজিং, বাল্যবিবাহ, কিশোর গ্যাঙসহ সামাজিক অপরাধ বিষয়ে সচেতন থাকতে এলাকাবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, বর্তমান টেকনলজি নির্ভর যুগে সাইবার অপরাধীরা ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস দিয়ে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে নিত্য নতুন অপরাধ সংগঠিত করছে। সাইবার বুলিংয়ের শিকার হলে বিষয়টি গোপন না রেখে আরএমপি’র সাইবার ক্রাইম ইউনিটের সহযোগিতা গ্রহণের পরামর্শ প্রদান করা হয়।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বোয়ালিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হুমায়ূন কবির এবং অত্র অঞ্চলের বিট অফিসার এসআই (নিরস্ত্র) মো. আব্দুল আওয়াল।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ