নগরীতে গোল টেবিল বৈঠকে বক্তারা মানসম্মত শিক্ষার জন্য শিক্ষা খাতে পর্যাপ্ত বরাদ্দের দাবি

আপডেট: এপ্রিল ২৮, ২০১৭, ১২:৩৭ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


‘শিক্ষা বিষয়ক গ্লোবাল অ্যাকশন সপ্তাহ’ উপলক্ষে স্ব-উন্নয়ন ও গণস্বাক্ষরতা অভিযানের উদ্যোগে বৃহস্পতিবার রাজশাহী নগরীতে গোল টেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়- সোনার দেশ

শিক্ষা বিষয়ক এক গোল টেবিল বৈঠকে বক্তারা বলেছেন, মানসম্মত শিক্ষার জন্য মানসম্মত শিক্ষক চায়। এর জন্য শিক্ষা খাতে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ বাড়াতে হবে।
বক্তারা বলেন, বাজেটের আকার বাড়লেও তুলনামূলকভাবে শিক্ষা খাতে বরাদ্দ বাড়ছেনা। এছাড়াও দাতা সংস্থা সমূহ শিক্ষায় অর্থায়নের হার ধীরে ধীরে কমিয়ে দিচ্ছে। যে কারণে মানসম্মত শিক্ষা ব্যাহত হচ্ছে। ফলে এসডিজি অর্জনে অর্থায়ন সংকট একটি প্রধান চ্যালেঞ্জ হতে পারে।
গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ‘শিক্ষা বিষয়ক গ্লোবাল অ্যাকশন সপ্তাহ’ উপলক্ষে স্ব-উন্নয়ন ও গণসাক্ষরতা অভিযানের উদ্যোগে রাজশাহী নগরীর সাধারণ গ্রন্থাগার হল রুমে আয়োজিত গোল টেবিল বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন, বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় সহসভাপতি শফিকুর রহমান বাদশা। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা অধিদপ্তর রাজশাহীর সহকারি পরিচালক আবুল কালাম আযাদ। শিক্ষক ও সাংবাদিক এসএম মোজাম্মেলের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, দৈনিক সোনার দেশ’র ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক আকবারুল হাসান মিল্লাত, সার্ক পিপলস্্ লিংক ফোরাম’র কাউন্সিলর বিলকিস বানু, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ রাজশাহী শাখার সভাপতি কল্পনা রায় ও দিনের আলো হিজড়া সংঘ’র সভাপতি মোহনা। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন স্ব-উন্নয়নের সভাপতি মুস্তাফিজুর রহমান খান এবং ধারণাপত্র পাঠ করেন দৈনিক সোনার দেশ’র ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক আকবারুল হাসান মিল্লাত। এসময় স্ব-উন্নয়নের প্রোগ্রাম কো-অডিনেটর তাহেরা খাতুন, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা’র (বাসস) সিনিয়র রিপোর্টার ড. আইনুল হক, সংবাদ সংস্থা এফএনএস’র বিভাগীয় প্রধান এস.এইচ.এম তরিকুল, রেডিও পদ্মা’র সিনিয়র রিপোর্টার যুবরাজ ফয়সালসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
উন্মুক্ত আলোচনায় সকল শিক্ষা ব্যবস্থায় পদমর্যাদা, দক্ষ শিক্ষক নিয়োগ প্রদানের লক্ষ্যে নিয়োগ বাণিজ্য বন্ধকরণ, শিক্ষা খাতে পর্যাপ্ত বরাদ্দ প্রদান, স্কুল ম্যানেজিং কমিটিকে সক্রিয় করা, হিজড়া সম্প্রদায়ের জন্য পৃথক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্মাণ, শিক্ষা কর্মকর্তাদের সন্তানদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠদানের ব্যবস্থা, সকল সম্প্রদায়ের মধ্যে বাধ্যতামূলক শিক্ষা ব্যবস্থা প্রদানের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ, ঝরে পড়া ঠেকাতে শিশু নির্যাতন বন্ধ, প্রাথমিক স্কুলে টিফিন ব্যবস্থা চালুসহ অনেক সুপারিশ উঠে আসে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ