নগরীতে চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা ও অপহরণ মামলার আসামি গ্রেফতার

আপডেট: June 23, 2020, 10:08 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক :


গ্রেফতারকৃত এএইচএম মহিবুল আলম ওরফে তিমু- সোনার দেশ

নগরীতে চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা ও অপহরণ মামলার এক আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তির নাম এএইচএম মহিবুল আলম ওরফে তিমু (৫০)। তিনি রাজশাহী নগরীর শিরোইল কলোনী এলাকার মৃত মমতাজ উদ্দিনের ছেলে। সোমবার (২২ জুন) দিবাগত রাতে রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) একটি দল তাকে গ্রেফতার করে।

 

মঙ্গলবার (২৩ জুন) দুপুরে আরএমপির মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তথ্য জানিয়েছেন। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, তিমুর বিরুদ্ধে আতিকুর রহমান (২৮) নামে এক যুবক থানায় প্রতারণা ও অপহরণের একটি মামলা করেছেন। আতিকুর রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার গোছা গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কনস্টেবল আবদুল জলিলের ছেলে। মামলায় আরও একজন এজাহারনামীয় আসামি আছেন। তার নাম রোকনুজ্জামান ওরফে রকি (২৫)। বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার ছোট আখড়া গ্রামে তার বাড়ি। বাবার নাম শাহিন আলম। রকি পলাতক।

পুলিশ জানায়, সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে আতিকুর ডিবি পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন যে, তিনি ও তার আরও ৬ বন্ধুকে পাবনার ঈশ্বরদীতে নির্মাণাধীন রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে চাকরি দেয়ার নামে ৫ লাখ ২৭ হাজার টাকা নিয়ে প্রতারণা করেছেন তিমু ও রকি।
টাকা ফেরত নিতে আতিকুর সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজশাহী শহরে এলে রকি ও তিমুসহ অজ্ঞাত চার-পাঁচজন ব্যক্তি তাকে জোর করে তুলে নিয়ে গিয়ে এক স্থানে আটকে রাখে। এরপর খুন করে লাশ গুম করে ফেলার ভয় দেখিয়ে তিনটি লিখিত স্ট্যাম্পে আসামিরা ৭ লাখ টাকা পাবে মর্মে স্বাক্ষর করে নেন। এ অভিযোগ পেয়ে নগর ডিবি পুলিশের একটি দল অভিযান চালিয়ে তিমুকে আটক করে। এ সময় তার হেফাজতে থাকা স্ট্যাম্প ও ব্যাংকের চেক উদ্ধার করা হয়।

এ ব্যাপারে নগরীর চন্দ্রিমা থানায় মামলা করেন আতিকুর। এ মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে মঙ্গলবার তিমুকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। অন্য আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ