নগরীতে পর্যাপ্ত বুস্টার ডোজ রয়েছে, চলছে সপ্তাব্যাপী ক্যাম্পেইন

আপডেট: জুন ৪, ২০২২, ১১:৪৪ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহী সপ্তাহব্যাপী শুরু হলো বুস্টার ডোজ ক্যাম্পেইন। নগরীতে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে শনিবার (৪ জুন) সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৩ টা পর্যন্ত বুস্টার ডোজ দেয়ার মাধ্যমে বুস্টার ডোজ সপ্তাহ শুরু হয়েছে। পর্যাপ্ত পরিমাণ বুস্টার ডোজ স্টোরে থাকলেও প্রথম দিনে ডোজ গ্রহীতার সংখ্যা আশানুরূপ বাড়েনি। রাসিকের ৩০ টি ওয়ার্ডে ১০ জুন পর্যন্ত এই বুস্টার ডোজ দেয়া হবে বলে জানান কর্মকর্তারা।

রাসিকের স্বাস্থ্যকর্মী ও তথ্যকেন্দ্র থেকে জানা যায়, মানুষকে ১ম পর্যায়ের ৭৪ শতাংশ, ২য় পর্যায়ের ৭০ শতাংশ এবং বুস্টার ডোজের ৩য় পর্যায়ের ১১ শতাংশ ডোজ দেয়া সম্পন্ন হয়েছে। বুস্টার ডোজের কোন প্রকার ঘাটতি নেই। পূর্বের বুস্টার ডোজ আছে। তারপরও সর্বশেষ প্রায় ৩০ হাজার ডোজ নিয়ে আসা হয়েছে।

সিটি হাসপাতাল, পুলিশ লাইন্স কেন্দ্রসহ নগরীর কয়েকটি জায়গায় নিয়মিত এই বুস্টার ডোজ দেয়া হয়। যাদের ১ম ও ২য় পর্যায়ের ভ্যাকসিন নেয়া হয়েছে। তারপর ৪ মাস হলেই সে পূর্বের সনদগুলো দেখিয়ে বুস্টার ডোজ নিতে পারবেন। সবার স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে, করোনাসহ অন্যান্য ভাইরাস প্রতিরোধেও প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে বলে জানান তারা।

নগর স্বাস্থ্য কেন্দ্র-৩ বা জোন-৩ এর ইপিআই স্টোর কিপার মাহাবুবা বিলকিস আরা পারভীন জানান, বুস্টার ডোজ সপ্তাহের প্রথম দিনেও ২৫ জনকে ২য় ধাপের সিনোফার্মা ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে। প্রাপ্ত বয়স বা ১৮ বছর বয়সীদের এই বুস্টার ডোজ দেয়া হয়েছে। বুস্টার ডোজ হিসেবে মর্ডানা, অ্যাস্টিজেনিকা, ফাইজার ডোজ দেয়া হচ্ছে। প্রথম দিনে তাঁর আওতায় থাকা ১০ টি ওয়ার্ডের ফিল্ড পর্যায়ে ৩০০ জন এবং স্থায়ী কেন্দ্রে ২৬০ জন এই মিলে মোট ৫৬০ জন গ্রহীতাকে বুস্টার ডোজ গ্রহণ করেছেন বলে জানান তিনি।

রাসিকের ১২ নং ওয়ার্ডে দায়িত্বরত সুপারভাইজার ও টেকনিশিয়ান রিমা আকতার জানান, একেকটি কেন্দ্রে প্রতিদিন ৫০০ জনকে বুস্টার ডোজ দেয়া হবে। অনেকে ২য় ডোজ শেষ করেছেন। বুস্টার ডোজ নেয়ার এখনও সময় হয়নি। তারপরও ৪০ জনকে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে বুস্টার ডোজ দেয়া হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ