নগরীতে ভুল সেট প্রশ্নপত্রে এইচএসসি পরীক্ষা

আপডেট: ডিসেম্বর ৮, ২০২১, ৯:৫২ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


নগরীতে ভুল সেট প্রশ্নপত্রে রসায়ন প্রথম পত্রের পরীক্ষা দিলেন ২৩৭ এইচএসসি পরীক্ষার্থী। নগরীর মাদার বখস গার্হস্থ অর্থনীতি কলেজ কেন্দ্রে দুটি কলেজের শিক্ষার্থীদের এই ভুল সেট প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা নেওয়া হয়। যা নিয়ে ক্ষুব্ধ ও চিন্তিত শিক্ষার্থীসহ অভিভাবকরা। তবে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড কর্তৃপক্ষ বলছে, এটা অনাকাক্সিক্ষত ভুল। আর এটা নিয়ে শিক্ষার্থীদের চিন্তিত হওয়ার কারণ নেই। যে পদ্ধতিতে মূল্যায়ন করলে শিক্ষার্থীদের কোন ক্ষতি হবে না সেটা নিয়ে আলোচনা করা হচ্ছে।

জানা যায়, বুধবার (৮ ডিসেম্বর) সকাল ১০টা থেকে বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডের অধীনে ২০০টি কেন্দ্রে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ১৯৯ কেন্দ্রে সেট-২ এর ‘তারা’ নামের প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে। শুধু রাজশাহীর মাদার বখস গার্হস্থ অর্থনীতি কলেজ কেন্দ্রে পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে সেট-৪ এর ‘তিমি’ নামের প্রশ্নপত্রে।
পরীক্ষা শুরুর কিছুক্ষণ পরেই কলেজ কর্তৃপক্ষ সেটের এই গরমিল সম্পর্কে জানতে পারে। তখন শিক্ষাবোর্ডকে হলে ওই সেটেই পরীক্ষা নেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কেন্দ্র সচিব সালমা শাহাদাত জানান, পরীক্ষা কেন্দ্রে দুটি করে সেট পাঠানো হয়। কোন সেটে পরীক্ষা নেওয়া হবে তা পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে শিক্ষাবোর্ড থেকে এসএমএস এর মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হয়। এই পরীক্ষার ক্ষেত্রেও শিক্ষাবোর্ড থেকে এসএমএস করা হয়েছে। কিন্তু ট্যাগ অফিসার হিসেবে থাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদফতরের একজন কর্মকর্তা সেট-৪ এর প্রশ্নপত্র বের করে দিয়েছেন। কিন্তু ট্যাগ অফিসারকে সেট-২ এর বিষয়েই জানানো হয়েছিলো।

সালমা শাহাদাত আরও জানান, পরীক্ষা শুরুর কিছুক্ষণ পর তারা ভুল প্রশ্নপত্র দেওয়ার বিষয়টি জানতে পারেন। এরপর শিক্ষাবোর্ডে ফোন করে পরামর্শ চাওয়া হয়। বোর্ড ওই প্রশ্নেই পরীক্ষা নিয়ে নেওয়ার নির্দেশনা দেয়। এখন সেট-৪ এর প্রশ্নে এখানকার পরীক্ষার্থীদের মূল্যায়নের জন্য তিনি শিক্ষাবোর্ডে লিখিতভাবে আবেদন করছেন।

এদিকে, পরীক্ষা গ্রহণের পর নাসির ওয়াহিদ নামের এক ব্যক্তি শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের কাছে যান।
এ বিষয়ে রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক আরিফুল ইসলাম বলেন, প্রশ্নপত্রের সেট নিয়ে একটা ভুল হয়ে গেছে। তবে শিক্ষার্থীদের যেন ক্ষতি না হয়। সে বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হচ্ছে।

দুই সেটের পরীক্ষার্থীদের মূল্যায়ন দুই রকম হবে কিনা? এই বিষয়ে জানতে চাইলে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক আরিফুল ইসলাম বলেন, সেট-৪ এর পরীক্ষার্থীদের সেভাবেই মূল্যায়নের ব্যবস্থা করা হবে।

প্রসঙ্গত, রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের অধীনে বিভাগের আট জেলায় রসায়ন বিষয়ের পরীক্ষার্থী ছিল ৩৭ হাজার ৮০৮ জন। এর মধ্যে ৩৭ হাজার ৬৬ জন পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। ৭৪২ জন পরীক্ষার্থী অনুপস্থিত ছিলেন। অনুপস্থিতির হার ১ দশমিক ৯৭ শতাংশ। রাজশাহী বোর্ডে এবার মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১ লাখ ৫০ হাজার ৭৪৫ জন।