নগরীতে শ্রমিক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

আপডেট: জানুয়ারি ২৮, ২০২২, ১০:৪৫ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


জমি নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে জহুরুল ইসলাম (৪৩) নামে শ্রমিক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগে একজনকে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) দুপুরে নগরীর ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের ভদ্রা রেল কলোনি সংলগ্ন ধানের জমিতে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পরে শিরোইলের হাজরাপুর এলাকার মৃত উমিদ আলীর ছেলে মতিয়ারকে (৪৫) আটক করে পুলিশ।

নিহত জহুরুল রেলওয়ে শ্রমিক লীগের ওপেন লাইন শাখার সহসভাপতি এবং নগরীর ১৯ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক। তিনি রেলওয়ের চাঁপাইনবাবগঞ্জের আমনুরা স্টেশনের পোর্টাল পদে কর্মরত ছিলেন।

১৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন জানান, বাড়ির পিছনে রেলওয়ে একটি জমিতে চাষাবাদ করা নিয়ে রেলওয়ের আরেক কর্মীর সঙ্গে জহুরুলের বিরোধ চলছিল।

শুক্রবার দুপুরে রেলের ওই জমিতে ধান লাগানোকে কেন্দ্র করে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে ওই সহকর্মী তাকে কুপিয়ে জখম করে পালিয়ে যান। স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।

রেলওয়ে শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আক্তার আলী জানান, জহুরুল ২০-৩০ বছর ধরে রেলওয়ের ওই পরিত্যাক্ত জমিতে ধান চাষ করে আসছে। বেশ কিছুদিন ধরে কে বা কারা ধান কেটে নিয়েছে তার। তবে ঘটনার দিন মতিয়ারকে ঘাস কাটতে দেখে জহুরুল। এনিয়ে দু’জনের মধ্যে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে হত্যাকা-ের ঘটনা ঘটে। যেহেতু জহুরুল রেলওয়ে শ্রমিক লীগের ওপেন লাইন শাখার সহসভাপতি; দলীয় ভাবে আমরা কর্মসূচি দেব। শনিবার (২৯ জানুয়ারি) সকাল ১১ টায় রেলওয়ে কলনী মাঠে জানাযা অনুষ্ঠিত হবে।

চন্দ্রিমা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইমরান আলী বলেন, জহুরুল ও সজীব দুজনই রেলওয়ের কর্মচারী। কয়েক বছর ধরে ওই জমিটি তারা দুজন চাষাবাদ করতেন। এ বছর জহুরুল একাই জমিটিতে ধান লাগাতে গেলে দ্বন্দ্ব বাধে। সে দ্বন্দ্বের জের ধরে এ হত্যার ঘটনা ঘটে।

তিনি আরো বলেন, নিহত জহুরুলের লাশ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এই ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে এই কর্মকর্তা জানান।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ