নগরীতে সাঁওতালি ভাষার অলচিকি বর্ণমালা প্রশিক্ষণ

আপডেট: জুন ১৭, ২০১৭, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ণ

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি


প্রশিক্ষণে অংশগ্রহনকারী শিক্ষার্থীরা সোনার দেশ

সাঁওতালি ভাষার নিজস্ব বর্ণমালা অলচিকি লিপি দিয়ে সাঁওতালি ভাষা লেখার জন্য দিনব্যাপি প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার আদিবাসী ভাষা সাহিত্য ও সংস্কৃতি চর্চা কেন্দ্র এবং সাওতালি ভাষা ও সংস্কৃতি উন্নয়ন কমিটির যৌথ উদ্যোগে নগরীর আলুপট্টিতে অবস্থিত মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগারে আজ এ প্রশিক্ষণ কর্মশালাটি অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিভিন্ন বয়সের ৩০ জনের অধিক সাঁওতাল প্রশিক্ষণার্থী অংশগ্রহণ করেন।
দিনব্যাপি এ প্রশিক্ষণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, সাঁওতাল সমাজসেবক ও সাবেক জেলা সমবায় কর্মকর্তা সূর্র্য হেমব্রম, আদিবাসী নেতা ভাগবত টুডু, আদিবাসী নারী নেত্রী সুমিলা টুডু, গোদাগাড়ী থানা পারগানা রবীন্দ্রনাথ হেমব্রম, উন্নয়নকর্মী গনেশ মার্ডী, রামদাস হাঁসদা প্রমুখ। প্রশিক্ষণে প্রশিক্ষক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মানিক সরেন, খোকন সুইটেন মুরমু, সূভাষ চন্দ্র হেমব্রম, হুরেন মুরমু ও সুবাস মুরমু। প্রশিক্ষণে সাঁওতালি ভাষা সাহিত্যের ইতিহাস, অলচিকি বর্ণমালা পরিচয় ও হাতে কলমে অলচিকি শিক্ষা, সাঁওতালি ভাষার ব্যাকরণ ও অলচিকি, মোবাইল ও কম্পিউটারে অলচিকি লেখার কলাকৌশল ইত্যাদি বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।
প্রশিক্ষণে বক্তারা বলেন, সাঁওতালি ভাষার নিজস্ব বর্ণমালা অলচিকি থাকার পরেও কিছু মানুষ ধর্মীয় ও রাজনৈতিক স্বার্থে ভিন্ন ভিন্ন লিপিতে সাঁওতালি লেখার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছেন। যা নিঃসন্দেহে নিন্দনীয়। অথচ অলচিকি লিপিও সাঁওতালদের একটি স্বতন্ত্র পরিচয়। একমাত্র অলচিকির মাধ্যমে সারা বিশ্বের সাঁওতালি সাহিত্যকে এক সূত্রে গাঁথা সম্ভব অভিমত জানিয়ে বাংলাদেশে অলচিকি লিপি দিয়ে সাঁওতাল শিশুদের জন্য প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা চালুর দাবি জানান বক্তারা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ