নগরীতে হঠাৎ শিলাবৃষ্টি

আপডেট: মে ৬, ২০১৭, ১:০০ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


নগরীতে শিলা বৃষ্টিপাত হয়েছে। দুই দফায় দশ মিনিট এ শিলাবৃষ্টি হয়। রাজশাহী মহানগর ও এর আশেপাশের এলাকায় বৃষ্টি হলেও সব এলাকায় শিলাবৃষ্টি হয় নি। গতকাল শুক্রবার বিকেল ৪টা ৪৫ মিনিট থেকে বিকেল ৪টা ৫০ মিনিট পর্যন্ত এ শিলাবৃষ্টি হয়। কিছুক্ষণ পর বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে আবার দ্বিতীয় দফা শিলাবৃষ্টি শুরু হয়। এই শিলা বৃষ্টিতে আমের ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার আশংকা দেখা দিবে বলে মনে করছেন কৃষকরা। কৃষিবিদদের মতে, মাঠের ধান ও অন্য ফসলের ওপর তেমন কোন প্রভাব না পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
বিকেলের পর সন্ধ্যার আগে বৃষ্টি কমলেও রাত ৯টার পরে আবার হালকা বৃষ্টি শুরু হয়। কিন্তু এসময় কোন শিলাবৃষ্টি হয় নি। রাজশাহী অঞ্চলে ৬ দশমিক ৫ মিলি মিটার বৃষ্টিপাত হয়। বৃষ্টির সময় ধাপে ধাপে কয়েকবার বিদ্যুৎ বিভ্রাট দেখা দেয় নগরীতে। এছাড়া যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায় ও পথচারীরা বিভিন্ন জায়গায় নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নেয়। বৃষ্টি কমলে দ্রুত গন্তব্য স্থানে যেতে থাকে। এসময় যানবাহন রাস্তায় কম থাকার ফলে অনেকে হেটে চলাচল করতে দেখা যায়।
রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের পর্যবেক্ষক নজরুল ইসলাম বলেন, শুক্রবার বিকেলে ৬ দশমিক ৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও সর্বনি¤্ন তাপমাত্রা ছিল ২৬ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সকালে বাতাসের আর্দ্রতা ছিল শতকরা ৯৭ ভাগ ও বিকেলে বাতাসের আর্দ্রতা ছিল শতকরা ৮৩ ভাগ।
এরআগে বিকেল ৩টার দিকে নগরীর আকাশ ঘন কালো মেঘে ঢেকে যায়। দীর্ঘক্ষণ হালকা কিছুটা বাতাস হওয়ার পর হালকা বৃষ্টি শুরু হয়। বেশ কিছুক্ষণ ধরে হালকা বৃষ্টি হলেও সাড়ে ৪টার দিকে বৃষ্টির গতি বেড়ে যায়। শুরু হয় ঝুম বৃষ্টি। কিছুক্ষণ পর বৃষ্টির সাথে শিলাবৃষ্টি পড়ে। শুরুর দিকে ছোট শিলা পড়লেও বেশ কয়েক মিনিট মাঝারি ধরণের শিলা বৃষ্টি হয়।
রাজশাহী অঞ্চলের আম ব্যবসায়ীরা বলেন, কয়েকদিন আগে বৈশাখি ঝড়ে গাছের অনেক আম পড়ে গেছে। আজ আবারো বৃষ্টির সঙ্গে শিল পড়লো। এবছর ভাগ্যে যে কি আছে ? শিলাবৃষ্টির ক্ষতি সঙ্গে সঙ্গে বোঝা যাবে না। কয়েকদিন পরে আমের গায়ে কালো দাগ থেকে পচন ধরবে। আবার অনেক আম ফেটে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে।
রাজশাহী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক দেব দুলাল ঢালী বলেন, মৌসুমের এ সময়ে প্রতিবারই বৃষ্টিসহ শিলাবৃষ্টিপাত হয়ে থাকে। শিলাবৃষ্টি হলেও আমের তেমন ক্ষতি হবে না তিনি আশা করছেন।