নগরীতে ১৯ টি স্টল নিয়ে পৌষ-পার্বন পিঠা মেলার উৎসব

আপডেট: জানুয়ারি ২৪, ২০২০, ১:০৭ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


শাহ মুখদম কলেজ মাঠে পিঠা উৎসব উদ্বোধন করেন বিশিষ্ট সমাজসেবী শাহীন আক্তার রেনী-সোনার দেশ

নগরীতে বাহারি পিঠার ১৯ টি স্টল নিয়ে পৌষ-পার্বন পিঠা মেলার উৎসব শুরু হয়েছে। রাজশাহী ইউমেন চেম্বর অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি ও রাজশাহী বিউটি’স এর যৌথ আয়োজনে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় নগরীর শাহ্ মখদুম কলেজ মাঠে মেলার উদ্বোধন করা হয়। অনুষ্ঠানে এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে লাল ফিতা কেটে মেলার শুভ উদ্বোধন করেন নগর আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি বিশিষ্ট সমাজসেবী শাহীন আকতার রেনী। এ সময় প্রধান অতিথি শাহীন আকতার রেনী বলেন, ‘বাংলার ঐতিহ্য পৌষ-পাবন পিঠা মেলা। আমাদের দেশে কৃষকের ঘরে নতুন ধান উঠার সময় গ্রামের বাড়িগুলোতে পিঠা বানানোর ধুম পড়ে যায়। আর বিশেষ করে শীতের সময় বিভিন্ন পিঠাপুলির উৎসব শুরু হয়ে যায়। এখন গ্রামের সাথে সাথে শহরেও পিঠার আয়োজন করা হয়। বর্তমানে বাণিজ্যিকভাবে দেশের বিভিন্ন জায়গায় পিঠার আয়োজন করা হচ্ছে’।
তিনি বলেন,‘বিভিন্ন অফিস ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নানান অনুৃষ্ঠানে এই পিঠার আয়োজনে হলে অনেক চাহিদা থাকে। তাই নতুন নতুন উদ্যেক্তা তৈরিতে প্রতি বছর ইউমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি এই মেলার আয়োজন করে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের পিঠার আয়োজন এখন শুধু দেশের মধ্যেই সীমাবন্ধ নয়। দেশের বাইরেও বিভিন্ন দেশে আমাদের পিঠার কদর রয়েছে। এই মেলায় মেয়েরা নতুনভাবে নিজের উন্নয়নে আত্মনির্ভশীল হয়ে উঠবে। নিজেকে গড়ে তোলার জন্য অনেক কিছু শিখবে।
মেলার আয়োজক উইমেন চেম্বর অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি রোজিটি নাজনিন বলেন, ‘রাজশাহী উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি প্রতি বছর নতুন নতুন উদ্যোক্তা তৈরি করতে ৫ থেকে ৬ টি অনুষ্ঠান করে থাকে। নতুনভাবে উদ্যোক্তা তৈরিতে এই পিঠা মেলার আয়োজন করা হয়।’ তিনি বলেন,
‘গত পাঁচ বছর থেকে এই মেলার আয়োজন করে আসছি। বর্তমানে মেয়েরা চায় তাদের জন্য নতুনভাবে একটি ক্ষেত্র তৈরি করে দিতে। তাই এই মেলার মাধ্যমে নতুন নতুন উদ্যোক্তা তৈরি হবে।
তিনি বলেন, মেয়েদের মাঝে আত্মবিশ্বাস বাড়বে এবং নিজেকে নিয়ে আত্মনির্ভরশীল হয়ে উঠবে’। তিনি বলেন,‘ এই মেলা শুধু মেলা নয়! নতুন প্রজন্ম অনেকগুলো পিঠার সাথে পরিচিত হবে। বাঙালির ঐতিহ্য খুঁজে পাবে’। মেলায় এবার ১৯ টি পিঠার স্টলের মাঝে ছিলো তিতাস পিঠাপুলি, তিমাস পিঠাপুলি, সখের পিঠাপুলি, রাহা পিঠাঘর, শীতের পিঠাঘর, লিমাস পিঠাঘর, গ্রাম্য পিঠাঘর, দিবা নদী পিঠাঘর, শান্তামালীর পিঠাঘর, পিঠার হেঁসেল, মমতাজ পিঠাঘর, সাঁজ বাতির পিঠাঘর, রকমারি পিঠাঘর, পিঠার আড্ডা ও রাজশাহী বিউটি’স। অনুষ্ঠানে শাহ্ মখদুম কলেজের অধ্যক্ষ রেজাউল ইসলামসহ কলেজের শিক্ষক শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন পেশাজীবী মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ