নতুন বছরে নতুন আশায় ফুটবল

আপডেট: জানুয়ারি ৮, ২০২০, ১২:৩৯ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে গতবার আশা পূরণ করতে পারেনি বাংলাদেশ, সেমিফাইনালে হেরে যায় ফিলিস্তিনের কাছে। এবার শিরোপায় চোখ স্বাগতিকদের। ৬ দলের এই আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্ট শুরু হবে ১৫ জানুয়ারি। সোমবার ঘোষিত হয়েছে ২৩ সদস্যের দল। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ১৩জন রিপোর্ট করেছেন ম্যানেজার সত্যজিৎ দাশ রুপুর কাছে। অনুশীলন শুরু হবে বুধবার সকালে, কমলাপুর স্টেডিয়ামে।
নেপাল এসএ গেমসে বাংলাদেশ ভালো করতে পারেনি, সন্তুষ্ট ছিল ব্রোঞ্জ নিয়ে। জাতির জনকের নামাঙ্কিত টুর্নামেন্টে সেই হতাশা মুছে ফেলতে চান মিডফিল্ডার সোহেল রানা, ‘ডিসেম্বরে এসএ গেমসে আমরা খুব খারাপ খেলেছি। এমন ফল হবে ভাবতেই পারিনি। আশা করি ঘরের মাঠে নতুন বছর ভালোভাবে শুরু করতে পারবো। এসএ গেমসের পর ১৫ দিনের বিরতি ছিল। তাই আমাদের মধ্যে তেমন ক্লান্তি নেই। ক্যাম্পে খুব বেশি ফিটনেস ট্রেনিং হবে বলে মনে হয় না। কোচ ট্যাকটিক্যাল দিক নিয়ে কাজ করবেন সম্ভবত।’
গোলকিপার আশরাফুল ইসলাম রানাও নেপালের ব্যর্থতা দূর করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ, ‘এসএ গেমসে ভালো করতে পারিনি। সেই ব্যর্থতা ভুলতে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে সাফল্য পেতে চাই। এই টুর্নামেন্টে আফ্রিকান দল আছে। তাদের বিপক্ষে খেলে নতুন অভিজ্ঞতা হবে।’
দেশের অন্যতম সেরা ডিফেন্ডার তপু বর্মণ ফিটনেস নিয়ে সন্তুষ্ট, ‘আমরা ক্লান্ত নই। ফেডারেশন কাপে বসুন্ধরা কিংস ফাইনালে খেলেছে। তাই ওদের খেলোয়াড়রা ছাড়া জাতীয় দলের অন্য সদস্যরা ভালোই বিশ্রাম পেয়েছে। সবচেয়ে বড় কথা, খেলোয়াড়রা সবাই ফিট। আমরা সম্পূর্ণ প্রস্তুতি নিয়েই খেলতে নামবো।’
উদ্বোধনী ম্যাচে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ফিলিস্তিন। বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের নিয়ে তপু ভীষণ সতর্ক, ‘গতবার সেমিফাইনালে ফিলিস্তিনের কাছে ২-০ গোলে হেরেছিলাম আমরা। এবার আমাদের গ্রুপের অন্য দল শ্রীলঙ্কা। তাই সেমিফাইনালে ওঠার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী। অবশ্য ফিলিস্তিন ম্যাচটা সহজ হবে না।’