‘নদীর পানি চুক্তি বিষয়ে অভিনব পরিকল্পনা করা হয়েছে’ ||রাবিতে নদী অলিম্পিয়াডে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

আপডেট: নভেম্বর ১৩, ২০১৬, ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ

রাবি প্রতিবেদক



আন্তর্জাতিক নদীর পানি চুক্তি বিষয়ে অভিনব ‘বেসিন ওয়ায়িজ রিভার ম্যানেজমেন্ট’ পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। তার মতে, এই পরিকল্পনায় আওতায় আন্তর্জাতিক নদীর পানি চুক্তিতে যে দীর্ঘসূত্রিতা তা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব। গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বিজ্ঞান ভবনের গ্যালারি কক্ষে আয়োজিত নদী অলিম্পিয়াডে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
শাহরিয়ার আলম বলেন, আমরা স্বধীনতার ৪৫ বছরে মাত্র একটি আন্তর্জাতিক নদীর পানি ব্যবহারের ব্যাপারে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। এভাবে প্রতি ৪৫ বছরে যদি একটি নদীর পানি চুক্তি করি তাহলে শত শত বছরেও শেষ হবে না। তাই আমরা একটি আইডিয়া দাঁড় করিয়েছি, ‘বেসিন ওয়ায়িজ রিভার ম্যানেজমেন্ট’। অর্থাৎ একটি নদীর উৎপত্তি যেখানে, সেখানে থেকে একাধিক নদীর উৎপত্তি হয়েছে। ম্যানেজমেন্টটা যদি আমারা সেখানে শুরু করি তাহলে সেখান থেকে উৎপত্তি হওয়া পাঁচটি নদীর ব্যাপারে একসাথে আমরা আলোচনায় এসে সমাধানে পথে পৌঁছাতে পারি। নীতিগতভাবে ভারত ইতিমধ্যে এ ব্যাপারে সম্মতিও প্রদান করেছেন বলে দাবি করেন তিনি।
পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় নতুনভাবে পুরোনো একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। যা চূড়ান্ত ধাপের আগ মুহুর্তে অবস্থান করছে। সেটি হলো, গঙ্গা ব্যারেজ প্রকল্প। গঙ্গা ব্যারেজ নামের ওই প্রকল্পের খরচ পদ্মার সেতুর চেয়েও চারগুণ বেশি। একটা নদীকে শাসন করা, নতুনভাবে পুনরুজ্জীবিত করা, পানি পরিস্কার করা…শুধু নদী নয়, আশপাশে যত খাল-বিল, জলাশয় আছে সেগুলোকে এই গঙ্গা ব্যারেজের আওতায় আনা হয়েছে।
রিভারাইন পিপল ও সমকাল সুহৃদ সমাবেশ যৌথভাবে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। রিভারাইন পিপলের চেয়ারপারসন মাসুদ পারভেজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন সমকালের সহকারী সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম আবেদ। সঞ্চালনা করেন সমকালের রাজশাহী ব্যুরো প্রধান সৌরভ হাবীব। আলোচনা শেষে বেলুন-ফেস্টুন উড়িয়ে অলিম্পিয়াডের উদ্বোধন করেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।
রাজশাহী বিভাগীয় পর্যায়ের এই অলিম্পিয়াডে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী কলেজ, রাজশাহী মেডিক্যাল, বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ও নর্থবেঙ্গল বিশ্ববিদ্যালয়েয় ২০০ জন অংশ নেয়। এর মধ্যে ২০জনকে বাছাই করা হয়েছে জাতীয় পর্যায়ে অংশগ্রহণের জন্য।