নাগাল্যান্ডে ১৩ বেসামরিক হত্যা ‘অপ্রত্যাশিত’ বললো সেনাবাহিনী

আপডেট: ডিসেম্বর ৫, ২০২১, ৭:১৫ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক:


ভারতের উত্তরপূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য নাগাল্যান্ডে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে ১৩ বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। রবিবার বিদ্রোহী ভেবে ভুলবশত গুলি চালানো হয় জানিয়েছে একে অপ্রত্যাশিত ঘটনা বলছে দেশটির সেনাবাহিনী। এদিনের ঘটনায় এক সেনা সদস্যও প্রাণ হারিয়েছেন।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা তাদের খবরে জানিয়েছে, মিয়ানমার সীমান্তবর্তী নাগাল্যান্ডের মন জেলায় ওটিংয়ে মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটে। বিদ্রোহী ভেবে সাধারণ শ্রমিকদের উপর গুলি চালানো হয়েছে। যদিও নিরাপত্তা বাহিনীর ওপরে পাল্টা হামলা চালানোরও অভিযোগ ওঠেছে। তবে স্থানীয় গ্রামবাসীর দাবি নিহতরা নির্দোষ। এলাকাবাসীর দাবি, প্রতিদিনের মতো তিরু থেকে কাজ শেষে পিক আপে করে ফিরছিলেন তারা। সেখানে কয়লা ক্ষেত্রে কাজ করতেন শ্রমিকরা। ট্রাকটি ৩০ বা তার বেশি শ্রমিক ছিলেন বলে জানা গেছে।

এই ঘটনার পর ভারতীয় সেনাবাহিনী এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে বিদ্রোহী অধ্যুষিত মন জেলায় অভিযান পরিচালনা করা হয়েছিল। তবে এমন ঘটনা খুবই ‘অপ্রত্যাশিত’। নিহতের ঘটনা উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত শুরু হয়েছে। আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নাগাল্যান্ড পুলিশ কর্মকর্তা সন্দ্বীপ এম জানান, হতাহতের ঘটনায় মন জেলায় খুবই উত্তেজনা বিরাজ করছে।

রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী নেইপিও রিও বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে দোষীদের শাস্তির আওতায় আনার চেষ্টা চলছে। এর জন্য গোয়েন্দা ব্যর্থতাকে দায়ী করছি আমি।

সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস জানিয়েছে, তিরুর একটি কয়লা স্থাপনা থেকে পিক আপ ভ্যানে করে তারা নিজেদের গ্রামে ফিরছিলেন। ভ্যানে ন্যাশনাল সোশালিস্ট কাউন্সিল অফ নাগাল্যান্ডের (এনএসসিএন) বিদ্রোহীরা ছিল বলে ধারণা করেছিল নিরাপত্তা সদস্যরা।

প্রতিবাদে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের ঘিরে ফেলে উত্তেজিত জনতা। বেশ কয়েকটি গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করেন বিক্ষুব্ধরা। আত্মরক্ষার্থে অভিযানে অংশ নেওয়া আইনশৃঙ্খলা সদস্যরা আবারও গুলি চালায়। দু’পক্ষের সংঘাতে এক জওয়ান নিহত হয়েছে বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন দেশটির কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।
তথ্যসূত্র: বাংলাট্রিবিউন