নাটোরের বাগাতিপাড়ার চাঁদপুর বি এম কলেজ || দীর্ঘ এক বছর পর অধ্যক্ষ নিয়ে জটিলতার অবসান

আপডেট: জানুয়ারি ২১, ২০১৭, ১২:১৫ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস


দীর্ঘ এক বছর পর নাটোরের বাগাতিপাড়ার চাঁদপুর বি,এম কলেজে অধ্যক্ষ নিয়োগ নিয়ে জটিলতার নিরসন হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার বাগাতিপাড়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফরহাদ হোসেন কলেজের মনোবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক লৎফর রহমানকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব বুঝে দিয়েছেন। এসময় এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, অভিবাবক, শিক্ষক কর্মচারী ও কলেজের ম্যানেজিং কমিটির সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
কলেজ কর্তৃপক্ষ ও স্থানীয়রা জানায়, ২০০০ সালে কলেজটি প্রতিষ্ঠার পর থেকেই যোগ্যতা না থাকা সত্ত্বেও প্রভাবশালী স্বঘোষিত অধ্যক্ষ মোকবুল হোসেন দায়িত্ব পালন করে আসছিলো। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই বিভিন্ন সময় প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্মচারী ও স্থানীরা কলেজের তথাকথিত ভুয়া অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, শিক্ষা কর্মকর্তা, জেলা প্রশাসক নাটোর, মহাপরিচালক কারিগরি শিক্ষা অধিদফতর, চেয়ারম্যান কারিগরি শিক্ষা বোর্ড বরাবর অভিযোগ করে আসছিলেন। তার ক্যাডার বাহিনীর ভয়ে ও টাকা দিয়ে সবকিছু ম্যানেজ করার প্রবনতায় অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে সাহস পেতো না। পাশাপাশি অদৃশ্য কারনে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের ও প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিদের ম্যানেজ করে বহাল তবিয়তে দীর্ঘ ১৬ বছর নিয়োগ বাণিজ্য, প্রতিষ্ঠানের টাকা আত্মসাৎ, জালিয়াতির মাধ্যমে অতিরিক্ত টাকা আদায়সহ প্রতিষ্ঠান নিয়ে বিভিন্ন অনিয়ম করে আসছিলো। কিন্তু গত বছরের শুরুর দিকে আবারো আন্দোলনে নামে শিক্ষক কর্মচারীরা। এসময় তারা বিভিন্ন দফতরে অভিযোগ, বিক্ষোভ-মিছিল, মানববন্ধন, ক্লাসবর্জনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে। এসময় অভিযোগের প্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফরহাদ হোসেন অধ্যক্ষ মোকবুল হোসেনকে তার অফিসে তলব করলে অধ্যক্ষ বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে কাল ক্ষেপন করতে থাকেন। কলেজ ম্যানেজিং কমিটির মিটিং ডাকলেও সেখানে উপস্থিত হন নি। এমনকি কলেজে আসাও বন্ধ করে দেন। পরে কলেজে উপস্থিত হয়ে অধ্যক্ষ মোকবুল হোসেনের সঙ্গে দেখা করতে আসলেও তিনি দেখা করেন নি। বরং বিভাগীয় কমিশনারের কাছে উল্টো অভিযোগ করেন তাকে সরানোর জন্য তার বিরুদ্ধে চক্রান্ত এবং হয়রানি করছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।
কলেজ কর্তৃপক্ষ জানায়,  জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও অতিরিক্ত জেলা প্রসাশক (সার্বিক) কাজী আতিয়ুর রহমান দীর্ঘ ৫ মাস ধরে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করেন। প্রতিবেদনে অধ্যক্ষ মোকবুল হোসেনকে অযোগ্য ও নিয়োগবিহীন বলে উল্লেখ করা হয়। জালিয়াতির ম্যাধমে ক্ষমতা দখলেরও অভিযোগ করা হয় তার বিরুদ্ধে। অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহনের সুপারিশ জানানো হয় প্রতিবেদনে। এছাড়া প্রতিবেদনে কলেজের সুষ্ঠু পরিবেশের স্বার্থে যতদিন বিধিমোতাবেক আইনানুগ অধ্যক্ষ নিযোগ না হয়, ততদিন একজন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নিয়োগ দিয়ে রুটিন দায়িত্ব পালনের সুপারিশ করা হয়। এর প্রেক্ষিতে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফরহাদ  হোসেন এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, জনপ্রতিনিধি, অভিবাবক, শিক্ষক কর্মচারী ও উপস্থিত সবার সম্মতিক্রমে কলেজের মনোবিজ্ঞান বিষয়ের প্রভাষক মো. লুৎফর রহমানকে অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) পদে দায়িত্ব দেন। বিষয়টিতে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন এলাকার সকল স্থরের মানুষরা।
বাগাতিপাড়ার চাঁদপুর বি এম কলেজের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) লুৎফর রহমান জানান, সবার সহায়তার মধ্যে দিয়ে এ প্রতিষ্ঠান মডেল প্রতিষ্ঠানে রুপান্তর ও যোগ্য অধ্যক্ষ নিয়োগের ব্যবস্থা করতে পারবেন বলে আশা প্রকাশ করেন।