নাটোরে খাদ্য গোডাউন কর্মকর্তা জামিনে মুক্ত || গ্রেফতারের প্রতিবাদ

আপডেট: এপ্রিল ১১, ২০১৭, ১২:২০ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস


নাটোরে সরকারি খাদ্য গুদাম থেকে গম পাচারের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসিএলএসডি) সাদাত হোসেন জামিনে মুক্তি পেয়েছে। গতকাল সোমবার দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে হাজির করা হয় খাদ্য গোডাউন কর্মকর্তা সাদাত হোসেন। পরে সাদাত হোসেনের আইনজীবী জামিন আবেদন করলে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক রেজাউল করিম জামিন মঞ্জুর করেন।
এদিকে, খাদ্য গোডাউন কর্মকর্তা সাদাত হোসেনকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার ও জেলহাজতে প্রেরণের বিষয়ে প্রতিবাদ সভা করেছে বাংলাদেশ খাদ্য পরিদর্শক সমিতি। সোমবার বিকেল নাটোর সদর গোডাউনে বাংলাদেশ খাদ্য পরিদর্শক সমিতি নাটোর জেলা শাখার আয়োজনে এক প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ খাদ্য পরিদর্শক সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আবদুর রহমান। এছাড়া প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য দেন খাদ্য পরিদর্শক সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির মহাসচিব উত্তম কুমার দাস। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ খাদ্য পরিদর্শক সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি আবদুর রহিমের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য দেন বাংলাদেশ খাদ্য পরিদর্শক কর্মকর্তা সমিতির সভাপতি হুমায়ন কবির, মহাসচিব আবদুল্লা হিল সাফি, সাবেক সভাপতি আবুল কালাম আজাদ এবং সাবেক মহাসচিব দেলোয়ার হোসেন।
এসময় বক্তারা বলেন, নাটোর সদর উপজেলা খাদ্য গোডাউনে বেশ কয়েকজন কর্মকর্তাকে লাঞ্ছিত করেছে কিছু অসৎ ব্যবসায়ী। যার সর্বশেষ স্বীকার হয়েছে ওসিএলএসডি সাদাত হোসেন। সমাবেশ থেকে ওই সব ব্যবসায়ীদের সুষ্ঠু বিচার না হওয়ায় পর্যন্ত সদর উপজেলার সব খাদ্য গোডাউন বন্ধের জোর দাবি জানানো হয়।
গত ৩ এপ্রিল ক্যাবের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অভিযান চালান নাটোর সদর উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার ফারজানা খানম। এসময় বৈধ কাগজপত্র দেখাতে না পরায় ১০টন গম জব্দ করেন তিনি এবং নাটোর সদর এলএসডি সাদাত হোসেনকে আটক করেন। এ ঘটনায় নাটোর সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অরুন কুমার প্রামানিক নাটোর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পুলিশ সাদাত হোসেনকে গ্রেফতার দেখিয়ে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে প্রেরণ করে। পরে শুনানি শেষে বিচারক সামসুল আল আমিন অভিযুক্ত সাদাত হোসেনের জামিন না মঞ্জুর করে জেলাহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।