নাটোরে জেলা প্রশাসকসহ ৩০ জনের করোনা শনাক্ত

আপডেট: July 29, 2020, 10:11 pm

নাটোর প্রতিনিধি


নাটোরের জেলা প্রশাসক মোহম্মদ শাহরিয়াজ, সিভিল সার্জন ডা. কাজী মিজানুর রহমান, নাটোর সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল হাসনাত ও একাধিক স্বাস্থ্যকর্মীসহ ৩০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।
মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) রাতে ঢাকার একটি ল্যাবরেটরি থেকে ওই তিনজনসহ জেলায় নতুন করে ৩০ জনের করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার ফলাফল এসেছে। সংক্রমিতদের অধিকাংশই চার থেকে পাঁচ দিন আগে নমুনা দিয়েছিলেন।
সিভিল সার্জনের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, সিভিল সার্জন কয়েক দিন ধরে বাড়িতে থেকে স্বাভাবিক দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। তিনি সরকারি বাসায় অবস্থান করে বুধবার (২৯ জুলাই) সকাল থেকে চিকিৎসা শুরু করেছেন।
জেলা প্রশাসকের ব্যক্তিগত সহকারি জানান, নমুনার ফলাফল জানার পর জেলা প্রশাসক নিজ সরকারি বাসভবনে অবস্থান করছেন। চিকিৎসকের পরামর্শমতো তিনি চিকিৎসা নিতে শুরু করেছেন। মঙ্গলবার পর্যন্ত জেলা প্রশাসক স্বাভাবিক কাজকর্মের পাশাপাশি বন্যা ও করোনা সংক্রান্ত বিশেষ কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন বলেও তিনি জানান।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আবুল হাসনাত জানান, তিনি কয়েক দিন ধরে কিছুটা জ্বর ও মাথা ব্যথায় ভুগছিলেন। বর্তমানে বাসায় থেকে চিকিৎসা শুরু করেছেন। তিনি ছাড়া তাঁর স্ত্রী, দুই সন্তান ও বোন সংক্রমিত হয়েছেন।
নাটোরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) শরিফুন্নেসা জানান, দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকে জেলা প্রশাসক, সিভিল সার্জন, পুলিশ সুপার ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সম্মুখসারিতে থেকে করোনা প্রতিরোধে ভূমিকা পালন করে আসছেন। জেলা প্রশাসনের জোর প্রচেষ্টার কারণে ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত নাটোর জেলায় কারও করোনার সংক্রমণ হয়নি। মঙ্গলবার পর্যন্ত তাঁরা করোনার বিরুদ্ধে কাজ করেছেন। এ ঘটনার পর জেলা প্রশাসনের সবাই নমুনা পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলেও তিনি জানান।
এদিকে মঙ্গলবার রাতে আগে সংক্রমিত বড়াইগ্রাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারীর মেয়ে, তাঁর হাসপাতালের দুজন স্বাস্থ্যকর্মী এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (সদর হাসপাতালে সংযুক্ত) আনছারুল হকের মালিকানাধীন আমেনা হাসপাতালের দুই স্বাস্থ্যকর্মীর শরীরে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ