নাটোরে টিকা প্রত্যাশীদের ভীড় সামাল দিতে পুলিশ মোতায়েন

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২১, ৯:৩৯ অপরাহ্ণ

নাটোর প্রতিনিধি:


সংক্রমণ কমলেও নাটোরে টিকা দান কেন্দ্র গুলোতে উপচেপড়া ভিড়ে বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। হুড়োহুড়ি ও ধাক্কাধাক্কি পরিস্থিতি সামাল দিতে পুলিশ মোতায়েন করেও তা মোকাবেলা করা কঠিন হয়ে পড়েছে। অন্যদিকে টিকা না পেয়ে অনেকেই ফেরত গেছেন। নারী-পুরুষদের জন্য আলাদা বুথ করা হলেও বয়স্কদের জন্য কোন ব্যবস্থা করা হয়নি এতে অনেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।

নাটোর সদর উপজেলার ভাতুরিয়া গ্রামের টিকা প্রত্যাশী শাহারা বেগম (৪০) এক মাস আগে রেজিস্ট্রেশন করে সকাল ৬ টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত অপেক্ষা করেও টিকা মেলেনি তার। তার মতে ওই গ্রাম থেকে টিকা নিতে আসা আরোও অনেকে হুড়োহুড়ি আর ধাক্কা-ধাক্কি দেখে আগেই বাড়ি চলে গেছে তারা।

অপর আরেকজন বিউটি আরা, তিনি নাটোর সদরের তেবাড়িয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা। গত দেড় মাস পূর্বে তার স্বামীসহ পরিবারের অন্যরাও রেজিষ্টশন করে, অনেক আসা করেই টিকা নিতে এসেছিল। কিন্তু দুইটার পরেও তারা অপেক্ষা করে টিকা না পেয়ে বাড়ি ফিরত গেছেন। এছারা নাটোর টেনিস ক্লাবে বুথের সামনে টেনিস মাঠে পর্যাপ্ত জায়গা থাকা সত্তে সেখানে একের বেশি কাউকে প্রবেশ করতে না দেয়ায় চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেন তারা।

নাটোর সদর আধুনিক হাসপাতালের সহকারি পরিচালক পরিতোষ কুমার রায় জানিয়েছেন, টিকা প্রত্যাশিদের চাপ বেড়ে যাওয়ায় সদর হাসপাতাল কেন্দ্রে ৪টি বুথের মাধ্যমে প্রতিদিন ১ হাজার নারী ও ১ হাজার পুরুষকে টিকা প্রদান করছেন তারা। এ দিন সকাল ৯ টা থেকে টিকা প্রদান শুরুর কথা থাকলেও গতকাল রবিবার সকাল থেকেই কেন্দ্র গুলোতে মানুষের গাদাগাদি ভীড় লক্ষ্য করা গেছে। ম্যাসেজ ছাড়াই টিকা নিতে আসায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের বাইরে চলে যাচ্ছে বলে জানান সহকারী পরিচালক।
নাটোর সদর থানার ওসি মুনসুর রহমান জানান, টিকা কেন্দ্রের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সেখানে পুরুষের পাশাপাশি মহিলা পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

এদিকে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, সবশেষ ২৪ ঘন্টায় নাটোরে করোনায় ১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এসময়ে ৩৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৬ জনের পজেটিভ ধরা পড়েছে। সংক্রমনের হার ১৬ শতাংশ।

এ ব্যাপারে নাটোরের জেলা প্রশাসক শামিম আহমেদ জানান, স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে বিষয়টি আলাপ করে ব্যবস্থা নিবেন। যাতে কোন মানুষ ফিরে না যায় এবং নির্বিঘেœ সবাই টিকা নিতে পারেন।