নাটোরে তিনদিন ব্যাপী ২৮৩ বছরের ‘ভাটোদাঁড়া কালিপূজা ও পাঁঠাবলি’ উৎসব শুরু

আপডেট: জুন ১৯, ২০২২, ১০:০৫ অপরাহ্ণ

নাটোর প্রতিনিধি:


নাটোরে শুরু হয়েছে তিনদিন ব্যাপী ২৮৩ বছরের ‘ভাটোদাঁড়া কালিপূজা ও পাঁঠাবলি’ উৎসব। নাটোর-বগুড়া মহসড়কে ও সদর উপজেলার ভাটোদাঁড়া নামক স্থানে শনিবার (১৮ জুন) রাতে আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে কালিপূজার উদ্বোধন করেন, নাটোর পৌরসভার মেয়র ও জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি উমা চৌধুরী জলি।

শনিবার রাত থেকে এখানে পূজা শুরু হওয়ার পর রাত ১২টা পর্যন্ত আটটি পাঁঠা বলি দেওয়া হয়। রোববার (১৯ জুন) ও সোমবার (২০ জুন) দুপুর থেকে বিকাল পর্যন্ত কয়েক দফায় চলবে এই পাঁঠা বলি।

ভাটোদাঁড়া কালিপূজা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক সুবীধ কুমার মৈত্র অলোক, পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট প্রসাদ কুমার তালুকদার বাচ্চা, ব্যবসায়ী শ্যামসুন্দর আগরওয়ালা, লক্ষণ পোদ্দার, অশোক কুমার, ভাটোদাঁড়া কালী মাতার মন্দির কমিটির সভাপতি তপন পাল, সহ-সভাপতি পরিমল কুমার ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব কুমার ঘোষ সহ বিভিন্ন ভক্তবৃন্দ।

আগামী মঙ্গলবার বিকালে পূজা শেষে প্রতিমা বিসর্জন দেওয়া হবে। এদিকে ‘ভাটোদাঁড়া কালিপূজা ও পাঁঠাবলি’ উৎসব কে ঘিরে ইতোমধ্যেই কালিবাড়ি চত্বরে বসেছে মিষ্টির দোকান, খেলনা, নাগরদোলা, খাট,আলমারি, পাঁপড়, চটপটিসহ শতাধিক বিভিন্ন সামগ্রীর দোকান।

মেলা প্রাঙ্গনে পাঁঠাবলি মানতে আসা দিঘাপতিয়ার পশ্চিম হাগুরিয়া গ্রামের সীমা রাণী জানান, পরিবারের মানত হিসেবে তিনি তার পরিবারের সদস্য, পাঁঠা ও বিভিন্ন ফল নিয়ে পূজা মণ্ডপে এসেছেন। মণ্ডপে মানত দিতে পারায় ও কালিমাকে প্রণাম করতে পারায় তারা অত্যন্ত খুশি।

মেলা উদযাপন কমিটির সহসভাপতি গণেশ চন্দ্র ভট্টাচার্জ জানান, এই পূজায় গত বছর ২৮০টি পাঁঠা বলি দেওয়া হয়। এ বছর এই সংখ্যা ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। পূজা উপলক্ষে এখানে তিন দিনে প্রায় লক্ষাধিক লোকের সমাগম হয়। ঢাকা, চট্টগ্রাম, খুলনা, রাজশাহীসহ বিভিন্ন জেলা ছাড়াও ভারতের কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ ও মালদহ জেলা থেকে আসেন দর্শনার্থীরা।