নাটোরে প্রতিবন্ধি নারীকে ধর্ষণের পর হত্যা মামলার সকল আসামি খালাস

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৭, ১:০১ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস


নাটোরে ফাহিমা (২৮) নামে এক প্রতিবন্ধি নারীকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা মামলার চার আসামির সকলকে খালাস দিয়েছে আদালত। গতকাল রোববার নাটোরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ এবং নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনাল আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক মোহম্মদ হাসানুজ্জামান এই আদেশ দিয়েছেন।
আদালত সুত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালের ১০ মে সন্ধ্যার পর সদর উপজেলার তেলকুপি গ্রামের স্বামী পরিত্যক্তা রোকেয়া বিবি সংসারের প্রয়োজনে প্রতিবন্ধি মেয়ে ফাহিমা খাতুন বাড়িতে একা রেখে প্রতিবেশির বাড়িতে যান। এসময় পুর্ব বিরোধের জেরে পার্শ্ববর্তী নলডাঙ্গা উপজেলার মদনহাট গ্রামের নয়ন শাহর ছেলে শরীফ উদ্দিন (৪৫),আবদুুল্লাহ ওয়াহেদের ছেলে শফিজ উদ্দিন (৪০), মৃত অখিলের ছেলে ওয়াহেদুল (৩৫) ও ফারুকের ছেলে মনিরুল (৩০) বাড়িতে ঢুকে ফাতেমার মুখ বেঁেধ অপহরণ করে বাড়ির অদুরে একটি ফসলের মাঠে নিয়ে যায়। সেখানে তারা ফাতেমার ওপর পাশবিক নির্যাতনের পর গলায় ওড়না বেঁধে শ্বাসরোধ করে হত্যা পর জনৈক একরামের তিলের জমিতে ফেলে রেখে যায়। বাড়ি ফিরে মেয়েকে না দেখে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে ওই জমি থেকে ফাতেমার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। এঘটনায় রোকেয়া বিবি বাদী হয়ে সদর থানায় ৪ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে ঘটনা প্রমানিত না হওয়ায় আদালত ওই চার আসামিকে বেকসুর খালাসের আদেশ দেন।
সরকার পক্ষের আইনজীবী পিপি শাজাহান কবির মামলার সকল আসামিকে খালাস দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মামলার স্বাক্ষ্য গ্রহণসহ সকল কার্যক্রম চলেছে জেলা দায়রা জজ আদালতে। শুধু মামলার রায় ঘোষণা করেছেন নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনাল আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক মোহম্মদ হাসানুজ্জামান ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ