নাটোরে সাংবাদিক নাজমুলকে হুমকির পর এবার মামলা!

আপডেট: জুলাই ৫, ২০১৭, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস


সাংবাদিক নাজমুল হাসানকে প্রাণনাশ ও মামলায় জড়িয়ে হয়রানির হুমকির পর এবার মামলা করলেন নাটোর জেলা পরিষদের সাত নম্বর ওয়ার্ড সদস্য আ’লীগ নেতা আলী আকবর। গত সোমবার অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তিনি ৫০ লাখ টাকার ক্ষতি উল্লেখ করে মানহানির মামলা করেন।
জানা গেছে, গত ২১ জুন বেলা ১১টা ৫৪ মিনিটে অনৈতিকভাবে হাসান আলী নামে এক ব্যক্তির নিকট থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়ার প্রতিবাদ করায় আলী আকবর মোবাইলে যমুনা টেলিভিশনের নাটোর প্রতিনিধি এবং টিভি রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসানকে প্রাণনাশের হুমকির পাশাপাশি মামলা দিয়ে ফাঁসানোর হুমকি দেন। যার অডিও রেকর্ডিং চলে আসে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে। এ ঘটনায় সংবাদিক নাজমুল হাসান গত ২২ জুন দুপুরে নাটোর সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এরপর নানা অপতৎপরতা শুরু করে আলী আকবর। তারই অংশ হিসাবে জনৈক হাসান আলীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে তার কাছ থেকে টাকা নেয়া হয় নি মর্মে হলফনামা করে নেন। পরে হলফনামা সংযুক্ত করে ২৮ জুন সদর থানায় জিডি এবং গত সোমবার অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মানহানির মামলা করেন। তাতে উল্লেখ করা হয় তার সামাজিক সুনাম ক্ষুন্ন করতেই তার নামে আজেবাজে কথা ছড়ানো হয়েছে। এজন্য তার পঞ্চাশ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।
নাটোর টিভি রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি বাপ্পী লাহিড়ী জানান, একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে অবৈধভাবে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এরপর আবার সাংবাদিককে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে। টাকা নেয়া এবং হুমকির যাবতীয় প্রমাণাদি থাকার পরও হয়রানির উদ্দেশ্যে সাংবাদিকের উপর মামলা চরম ধৃষ্টতার বহিঃপ্রকাশ। এক্ষেত্রে প্রশাসন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে এটাই প্রত্যাশা।
এর আগে গত ২১ জুন সাংবাদিক নাজমুল হাসানের বাবা ও বোন জনৈক হাসান আলীর কাছে জমি বিক্রি করেন। জমি ক্রয়-বিক্রয়ের পরে জেলা পরিষদের সদস্য আলী আকবর হাসান আলীর কাছ থেকে দলীয় ছেলেদের খরচাপাতির কথা বলে ভয়-ভীতি দেখিয়ে ১৭ হাজার টাকা নেয়। বিষয়টি জানার পরে নাজমুল হাসান টাকা নেয়ার ঘটনাটি তুলে ধরে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। পরে বুধবার দুপুর ১১টা ৫৪ মিনিটে ফেসবুকে দেয়া পোস্ট নিয়ে সাংবাদিক নাজমুল হাসান ও জেলা পরিষদ সদস্য আলী আকবরের মধ্যে মোবাইলে কথা হয়। এসময় আলী আকবর সাংবাদিক নাজমুল হাসানকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে বলেন ‘তুই কত বড় সাংবাদিক হয়েছিস, আমি দেখে নেবো। কানাইখালী আসলে তোকে মারপিট করা হবে।’ এছাড়া ওই সাংবাদিককে মামলা দিয়ে ফাঁসানোরও হুমকি দেন আলী আকবর। এ ঘটনায় নাজমুল হাসান ২২ জুন দুপুরে নাটোর সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ