নাটোরে স্কুল ছাত্রীর সাথে অশালীন আচরণ করে ভিডিও ধারণ || দোষীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন

আপডেট: জুলাই ৩১, ২০১৭, ১:২৯ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস


নাটোরে ৯ম শ্রেণির এক ছাত্রীর অশালীন আচরণ করে সেই ভিডিও ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় লজ্জায় বিদ্যালয়ে যাওয়া বন্ধ হয়ে গেছে ওই ছাত্রীর। বখাটেদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে  গতকাল রোববার মানববন্ধন করেছে বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।
জানা যায়, বন্ধুদের সাথে বাজি ধরে নাটোর সদর উপজেলার দত্তপাড়া উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র বড়হরিশপুর এলাকার ইব্রাহীম হোসেনের ছেলে মুক্তার হোসেন নবম শ্রেণির এক ছাত্রীর সাথে অশালীন আচরণ করে। এসময় সেই দৃশ্য ধারণ করে মুক্তারের বন্ধু মামুনসহ অন্যরা। শুধু ভিডিও ধারণ করেই থেমে থাকেনি তারা। ভিডিওটি তারা ছড়িয়ে দিয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে। এরপর থেকেই লজ্জায় অপমানে স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দেয় ছাত্রীটি। গত ১৬ জুলাই ঘটে যাওয়া ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে আপোষ মিমাংসার চেষ্টা করা হয়। তাতে সুফল না পেয়ে পরে গত ২৫ জুলাই রাতে অভিযুক্ত মুক্তার ও মামুনের বিরুদ্ধে মামলা করে নির্যাতিত ছাত্রীর পরিবার। এ ঘটনায় ফুসে উঠেছে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। বখাটেদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে গতকাল মানববন্ধন করেছে তারা। মানববন্ধনে দোষীদের কঠোর শাস্তির দাবি জানান তারা। দত্তপাড়া উচ্চবিদ্যালয়ের সভাপতি রমজান আলী জানান, যে ঘটনাটি ঘটেছে তা অত্যন্ত ন্যক্কারজনক। দোষীরা যাতে আইনের ফাঁকফোকর দিয়ে বের হয়ে যেতে না পারে সেজন্য সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুুল কুদ্দুস জানান, ভবিষতে যেন কেউ এ ধরনের ঘৃণ্য কর্মকান্ড ঘটাতে না পারে সে জন্য এলাকাবাসী নিয়ে সচেতনতা গড়ে তোলা হবে।
অবিভাবক মাখন ভূঁইয়া বলেন, স্কুলের শিক্ষার্থীরা এ ঘটনায় চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে। চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে অভিভাবকদের মাঝেও। এলাকাবাসি, শিক্ষক ও বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সদস্যরাও চায় দোষীরা আইনের আওতায় আসুক। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নাটোর সদর থানার এসআই সাদাদ হোসেন জানান, মেয়েটির চাচা বাদী হয়ে যৌন হয়রানির মামলা দায়ের করেছেন । মামলা হবার পর অভিযুক্তদের মধ্যে একজনকে আটক করা হয়েছে। বাকিদের  গ্রেফতারে প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে।