নাটোরে ৪টি বিদেশি পিস্তল ও ১৬ রাউন্ড গুলিসহ পাঁচজন গ্রেফতার

আপডেট: জানুয়ারি ১১, ২০১৭, ১২:১০ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস



নাটোর শহর থেকে ৪টি বিদেশি পিস্তল, ২টি ওয়ান সুটারগান, ৯টি ম্যাগজিন ও ১৬ রাউন্ড গুলিসহ পুলিশের তালিকাভূক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী জেমসসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে (র‌্যাব-৫)। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে সাড়ে ৪টার সময় র‌্যাবের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়।
এর আগে দুপুরের দিকে  শহরের মল্লিকহাটি থেকে তাদের গ্রেফতার করে র‌্যাব সদস্যরা। গ্রেফতাকৃতরা হলো, শহরের কানাইখালি মহল্ল¬ার সাদেক আলী শেখের ছেলে জেমস (২৯), মলি¬কহাটি এলাকার আনারুল ইসলামের ছেলে রেজাউল করিম প্রিন্স (৩২), একই এলাকার  বুলবুল প্রামানিকের ছেলে শাকিল হোসেন সজীব (২৮) মৃত আকতার শেখের ছেলে রবিউল ইসলাম (৩২) ও তার স্ত্রী নাজমা বেগম (২৫)।
র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-৫ এর নাটোর ক্যাম্পের  কোম্পানি কমান্ডার মেজর এএম আশরাফুল ইসলাম জানান, নাটোর শহরের মলি¬কহাটি এলাকার একটি বাড়িতে অস্ত্র কেনা-বেচা হচ্ছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার সময় ওই এলাকায় অভিযান চালানো হয়। অভিযানের সময় প্রথম দিকে মলি¬কহাটি ঘোষপাড়া এলাকায় রনির চায়ের দোকানে চা পান করা অবস্থায় শহরের শীর্ষ সন্ত্রাসী জেমস এবং তার দুই সহযোগি প্রিন্স ও সজীবকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে মলি¬কহাটি পশ্চিম পাড়ার এলাকার রবিউল ইসলামের বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। সেখানে গ্রেফতারকৃতদের দেখিয়ে দেয়া স্থান থেকে ৪টি বিদেশি পিস্তল, ২টি ওয়ান সুটারগান, ৯টি ম্যাগজিন, ১৬ রাউন্ড গুলি ৯টি মোবাইল ফোন ও একটি অস্ত্রের যন্ত্রাংশ উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় বাড়ির মালিক রবিউল ইসলাম ও তার স্ত্রীকেও গ্রেফতার করা হয়।
তিনি আরো জানান, গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। এদের মধ্যে জেম্সের নামে ইতিপূর্বে নাটোর থানায় হত্যার চেষ্টা, অপহরণ করে চাঁদাবাজিসহ ৯টি মামলা, এছাড়া সজীবের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কার্যকালাপসহ ১১টি মামলা, এবং প্রিন্সের চাঁদাবাজি হত্যা চেষ্টাসহ ৬টি মামলা রয়েছে। এরা নাটোর শহরে বিভিন্ন এলাকায় লোক অপহরন করে চাঁদা আদায়, অস্ত্র ব্যবসা, ছিনতাই, মাদক ব্যাবসার সাথেও জড়িত।